জেপি নাড্ডা’কে “চাড্ডা, মাড্ডা, ফাড্ডা” বলায় রেগে আগুন বিমান, মমতাকে দিলেন চরম হুঁশিয়ারি…

সম্প্রতিক বাংলা সফরে এসেছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। ডায়মন্ডহারবারে দলীয় কর্মসূচি করতে গেলে তাকে আক্রমণ করা হয়। তার গাড়িতে পাথর ছোঁড়া হয়৷ অভিযোগ ওঠে পুলিশ থাকলেও পুলিশ কোনো রকম ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গের মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাকে চাড্ডা,ফাড্ডা, বলে কটাক্ষ করেছেন। সেই কারণে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমালোচনা করলেন বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু। এই ধরনের ভাষা জাতীয় সংহতির পক্ষে বিপজ্জনক।

বিমান বসু বলেন তিনি এখনও গর্মেন্ট বলেন। এখনও শুদ্ধ উচ্চারণ করতে পারলেন না। এই পরিস্থিতিতে গভর্নেস আসবে কোথা থেকে? মুখ্যমন্ত্রীকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বিমান বসু বলেন একজন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে আরও অনেক বেশি সংযতভাবে ভাষার প্রয়োগ করা উচিত।

মমতার যখন যা খুশি যাকে তাকে বলে ডাকতে পারেন না। চাড্ডা একটি পাঞ্জাবি পদবী। মুখ্যমন্ত্রী নাড্ডার সঙ্গে ছন্দ মিলিয়ে যেভাবে কথা বলছেন তা জাতীয় সংহতি পক্ষে বিপজ্জনক। এর পরিণাম ভালো হবে না।

 

আজ থেকে শুরু হয়ে গেল সেভিং অ্যাকাউন্টে নতুন নিয়ম, না মানলে দিতে হবে জরিমানা…

 

প্রসঙ্গত 10 ডিসেম্বর কেন্দ্রের কৃষি আইন এর বিরুদ্ধে গান্ধী মূর্তি পাদদেশে তৃণমূলের সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “কোনদিন চিফ মিনিস্টার আসছে কোনদিন হোম মিনিস্টার আসছে কোনদিন অন্য কোন মিনিস্টার আসছে আবার কোনদিন চাড্ডা ফাড্ডা গাড্ডা চলে আসছে। ওরা অনুষ্ঠান করবে। আর কেউ করবে না। আসলে বিজেপির সভায় লোক কম হচ্ছে বলেই হামলার নাটক করতে হচ্ছে।

বিমান বসু আরও বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একজন মুখ্যমন্ত্রী, কিন্তু তাঁর মত কথা বলছেন না তিনি৷ তাই রাজ্যপাল রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করার কথা বলতে পারছেন।প্রসঙ্গত মুখ্যমন্ত্রীর মন্তব্যের পরে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় বলেছিলেন, তিনি (মমতা) আগুন নিয়ে খেলছেন। বিমান বসু বলেন , মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তিনি যে শপথ নিয়েছিলেন, তা মেনে চলা উচিত।