আইপিএলের ইতিহাসে এই প্রথম বার হতে চলেছে সবচেয়ে বড় ফাইনাল ম্যাচ, অমিত শাহ সহ প্রধানমন্ত্রী মোদী থাকতে পারেন শামিল

আইপিএলের এই মরসুমের ফাইনাল ম্যাচটি ২৯শে মে রবিবার গুজরাটের আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। এমতাবস্থায়, এই ম্যাচ নিয়ে দর্শকদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা বিরাজ করছে। আসলে দুই বছর পর আবার মাঠে গিয়ে নিজেদের দেশে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ফাইনাল ম্যাচ উপভোগ করতে পারবেন ভারতীয় দর্শকরা, যার কারণে এই ম্যাচের প্রস্তুতিও চলছে পুরোদমে।


এই ম্যাচটি আইপিএল ইতিহাসে সবচেয়ে বড় এবং সর্বাধিক সংখ্যক দর্শকদের মধ্যে খেলা হবে। আসলে নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়াম বিশ্বের সবচেয়ে বড় মাঠ। শুধু তাই নয়, এই মাঠের বসার ব্যবস্থার কথা যদি বলি, তাহলে এই মাঠে মোট ১ লাখ ৩২ হাজার আসন রয়েছে, যা বিশ্বের কোনো ক্রিকেট মাঠে নেই, এছাড়াও সবচেয়ে বড় কথা হল এই ম্যাচে গুজরাট টাইটান্সের দল আসার কারণে এই ম্যাচটি আরও বিশেষ হয়ে উঠেছে।

কোয়ালিফায়ার ২ ম্যাচে গুজরাটের বিপক্ষে ফাইনাল ম্যাচে কোন দল খেলবে তা নিয়ে মানুষ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে। কোয়ালিফায়ার ২এ রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর ও রাজস্থান রয়্যালসের মধ্যে ম্যাচ। এমন পরিস্থিতিতে, সবার চোখ স্থির এই ম্যাচের দিকে, কারণ এই ম্যাচের পরই পরিষ্কার হয়ে যাবে কোন দল ফাইনালে গুজরাটের মুখোমুখি হবে। ২৯শে মে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া আইপিএল ফাইনালের আগে সমাপনী অনুষ্ঠানও শুরু হবে।


পাশাপাশি এই ম্যাচের আগে দর্শকদের বিনোদন ও উৎসাহ বাড়াতে কাজ করবেন অনেক অভিজ্ঞ তারকা। শুধু তাই নয়, এই ম্যাচের সন্ধ্যাকে আরও রঙিন করতে সময় পাল্টেছে বিসিসিআই। যার কারণ প্রায় ৪ বছর পর এই অনুষ্ঠান হতে যাচ্ছে। দর্শকরা যাতে যতটা সম্ভব উপভোগ করতে পারেন, সে কারণে এদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে শুরু হবে সমাপনী অনুষ্ঠান, যেখানে রণবীর সিং, এ আর রহমান সহ বলিউডের অনেক তারকা পারফর্ম করবেন, এছাড়া অংশগ্রহণ করবেন ক্রিকেট বিশ্বের অনেক তারকা।

প্রায় ৫০ মিনিট ধরে চলবে এই অনুষ্ঠান। এরপর সন্ধ্যা ৭.৩০ মিনিটে টস এবং রাত ৮টায় ফাইনাল ম্যাচ হবে। এ বছর অনুষ্ঠিতব্য ফাইনাল ম্যাচে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও এই ম্যাচ দেখতে আসতে পারেন বলে আশা করা হচ্ছে। আসলে, ২৮শে মে গুজরাট সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও ২৯শে মে স্পোর্টস এনক্লেভে ভূমি পুজোর জন্য নারানপুরা যাবেন। এই কারণে স্টেডিয়ামের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এছাড়াও উভয় নেতার উপস্থিতির সম্ভাবনা রয়েছে। যদিও আনুষ্ঠানিকভাবে বিষয়টি এখনো নিশ্চিত করা হয়নি।