বড় খবরঃ ভ্যাকসিন নিয়ে সংশোধিত নির্দেশিকা জারি কেন্দ্রের, এবার থেকে

গতকাল বিকাল পাঁচটায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে গিয়ে বলেছেন ২১ জুন থেকে ১৮ বছরের বেশি বয়সিদেরও বিনামূল্যে টিকা দেওয়া হবে। আজ মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী টিকাকরণ নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে কিছু পরামর্শ দিয়েছেন। টিকাকরণের বন্টনের ব্যাপারটি রাজ্যের কাছ থেকে কেন্দ্র নিজেদের হাতে নিয়েছে। আর আজ টিকাকরণ বন্ধ নিয়ে কিছু নির্দেশিকার কথা জানিয়ে দিল কেন্দ্র। নির্দেশিকার মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছে যে কেন্দ্র সরকার কিভাবে রাজ্যগুলির মধ্যে ভ্যাকসিন বন্টন করবে।

দেশের মধ্যেই উৎপাদিত ভ্যাকসিনগুলি রাজ্যের কাছ থেকে কেন্দ্র সরকার কিনে নেবে। তারপর সেগুলিকে বন্টন করবে রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল গুলোতে। কেন্দ্রের কাছে থেকে এই ভ্যাকসিন নিতে রাজু গুলিকে কোনো মূল্য খরচ করতে হবে না।

কোন নিয়মে রাজ্যগুলির মধ্যে এই টিকা বন্টন করা হবে সে বিষয়েও এই নির্দেশিকাতে বলা হয়েছে। জনসংখ্যা, টিকাকরণের গতি, সংক্রমণ— এসব বিবেচনা করে টিকা বণ্টন হবে। যে রাজ্যের জনসংখ্যা সংক্রমণ বেশি সেই রাজ্যগুলির নাম ভ্যাকসিন পাওয়ার তালিকায় প্রথমের দিকে থাকবে। এর পাশাপাশি রাজ্যগুলি যাতে করোনার টিকা নষ্ট না করে সেই বিষয়ে নজর রাখলে কেন্দ্র সরকার। টিকা নষ্ট হলে টিকা বন্টনের ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব পরবে।


টিকা উৎপাদনকারী সংস্থা থেকে বেসরকারি হাসপাতাল গুলো টিকা কিনতে পারবে। খুচরা ব্যবসায়ীদের জন্য বলা হয়েছে ১৫০ টাকার বেশি পরিষেবা কর ধার্য করতে পারবে না। এছাড়াও বেসরকারি সংস্থাগুলিকে বলা হয়েছে টিকা বণ্টনের বিষয়ে দিকেও নজর দিতে।

কোন জেলায় কত টিকার প্রয়োজন, কত টিকা দেওয়া হয়েছে, সবই জানাতে হবে । নির্দেশিকায় বলা হয়েছে স্বাস্থ্যকর্মী, ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কার এবং ৪৫ বছরের বেশি সমস্ত জনসাধারণের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।