কেন্দ্রীয় সরকারের বড় উদ্যোগ এবার ফেলে দেওয়া প্লাস্টিক দিয়ে তৈরি করা হবে প্রায় দু’লক্ষ কিলোমিটার বিস্তীর্ণ রাস্তা…

ফেলে দেওয়া প্লাস্টিক দিয়ে রাস্তা তৈরি এর আগেও আমরা দেখেছি। কার্যত প্লাস্টিকের দূষণ কমানোর জন্য 2016 সালে সরকারিভাবে ঘোষণা করা হয়েছিল যে বর্জ্য প্লাস্টিক থেকে রাস্তা তৈরি করা হবে। আপনাদের জানিয়ে দিই আমাদের দেশে বর্জ্য প্লাস্টিক দিয়ে এক লক্ষ কিলোমিটার রাস্তা তৈরি হয়েছে। এবং ভবিষ্যতে এই সমস্ত ফেলে দেওয়া প্লাস্টিককে কাজে লাগানোর জন্য আরো ব্যবস্থা নিচ্ছে সরকার। এর ফলে পরিবেশ দূষণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এ বছরে বর্জ্য প্লাস্টিক দিয়ে দু লক্ষ কিলোমিটার রাস্তা তৈরি করার জন্য সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

সম্প্রতি 2016 সালে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গড়করি প্লাস্টিক দিয়ে রাস্তা তৈরি করার ঘোষণা করেছিলেন। সরকারি পরিসংখ্যান অনুসারে, দেশের মোট 11 টি রাজ্যে 1 লক্ষ কিলোমিটার রাস্তা তৈরি হয়েছে প্লাস্টিক দিয়ে। ইতিমধ্যেই গুরুগ্রাম মিউনিসিপাল কর্পোরেশন প্লাস্টিক দিয়ে রাস্তা তৈরির কাজ শুরু করে দিয়েছে। এর পাশাপাশি অসম ও একই পথে হাঁটছে। সেখানে প্লাস্টিক দিয়ে রাস্তা তৈরির কাজ শুরু হতে চলেছে খুব শীঘ্রই।

বর্জ্য প্লাস্টিক দিয়ে যে রাস্তা নির্মাণ করা যায় তা প্রথম দেখেছিলেন মাদুরাইয়ের থিয়াগরজার ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের অধ্যাপক পদ্মশ্রী প্রাপ্ত রাজাগোপালন বাসুদেবন। 2001 সালে তিনি প্রথম বিটুমিনের সঙ্গে বর্জ্য প্লাস্টিকের মিশ্রন করিয়ে যে রাস্তা তৈরি করা যাবে তা আবিষ্কার করেছিলেন। এরপর থেকেই দেশজুড়ে প্লাস্টিক দিয়ে রাস্তা তৈরি করার প্রক্রিয়া চালু হয়। এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এক কিলোমিটার রাস্তা তৈরি করতে 1 টন বিটুমিন এবং 1 টন প্লাস্টিক প্রয়োজন পড়ে। সাধারণত প্লাস্টিক দিয়ে যে রাস্তা তৈরি হয় তাতে 6 থেকে 8 শতাংশ বর্জ্য প্লাস্টিক থাকে এবং বাকি ভাগ থাকে বিটুমিনের।

রাজাগোপালন বাসুদেবন

ভারতের প্রথম চেন্নাইতে 1000 কিলোমিটার রাস্তা তৈরি হয় প্লাস্টিক দিয়ে। এরপরে পুনে, সুরাট, মুম্বাই এই সমস্ত জায়গায় চালু হয় ব্লাস্টিক দিয়ে রাস্তা তৈরির কাজ। চেন্নাইতে 1000 কিলোমিটার রাস্তা তৈরি করতে প্রায় 1600 টন বর্জ্য প্লাস্টিক লেগেছে। এরপর মধ্যপ্রদেশে গ্রামীণ সড়ক যোজনার দ্বারা 17 টি জেলায় মোট 35 কিলোমিটার রাস্তা তৈরি হয় এই পদ্ধতিতে। এছাড়াও দেশের আরো অন্যান্য জায়গায় প্লাস্টিক দিয়ে রাস্তা তৈরির কাজ শুরু হয়ে গেছে ইতিমধ্যে।

কেন্দ্রীয় পরিবেশ মন্ত্রকের তথ্য অনুসারে, আমাদের দেশে প্রত্যেকদিন কমপক্ষে 25,940 টন বর্জ্য প্লাস্টিক জমা হয়। এর মধ্যে 60% প্লাস্টিক কে পুনর্ব্যবহার করার ব্যবস্থা রয়েছে। আর বাকি 40 শতাংশ প্লাস্টিক নদী-নালা, সমুদ্র তে গিয়ে জমা হয়। এর ফলে জলজ প্রাণীদের উপর খারাপ প্রভাব পড়ে। যার সম্পূর্ণ প্রভাব পড়ে বাস্তুতন্ত্রের উপর। তাই পরিবেশের ভারসাম্যকে বজায় রাখার জন্য সরকার থেকে এই ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার অনেকদিন আগেই স্বচ্ছ ভারত মিশন চালু করেছিল। আর বর্জ্য প্লাস্টিক কে ফেলে না দিয়ে তাকে সম্পূর্ণভাবে পুনর্নির্মাণকেও কেন্দ্রীয় সরকার স্বচ্ছ ভারত মিশন হিসেবে ধরেছে।

এছাড়াও একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, বিটুমিন এবং বর্জ্য প্লাস্টিক দিয়ে যে রাস্তা তৈরি হয় তা পিচ রাস্তা থেকে অনেক মজবুত হয়। যেকোনো রকম প্রাকৃতিক দুর্যোগ আসুক না কেন এই রাস্তার কোন ক্ষতি হবে না বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button