ভর্তুকিহীন রেশন কার্ডের আবেদন শুরু 5ই নভেম্বর থেকে, দেখে নিন কীভাবে করবেন এর জন্য আবেদন

আমরা সবাই জানি দারিদ্র সীমার ওপরের লোকেদের জন্য সস্তার চাল গম বরাদ্দ করা থাকে না সরকারের তরফ থেকে। তাই আমাদের সাধারণত যে রেশন কার্ড তারও প্রয়োজন নেই। এর পরিবর্তে দারিদ্র্যসীমার নিচে থাকা সমস্ত সচ্ছল পরিবারগুলি কে ভর্তুকিহীন ডিজিটাল রেশন কার্ড দেওয়া হবে। যা সরকারি পরিচয় পত্রের ভূমিকা নেওয়ার সাথে সাথে গণবণ্টন বহির্ভূত গেরস্থালির জিনিসপত্র কেনার ক্ষেত্রে কিছুটা ছাড় পাওয়া যাবে। নিম্ন মধ্যবিত্ত, মধ্যবিত্ত এবং উচ্চ মধ্যবিত্তদের জন্য এ রেশন কার্ডের আবেদন পত্র জমা দেওয়ার দরজা খুলছে আগামী মাস থেকেই।

খাদ্য দপ্তর থেকে প্রাপ্ত খবর অনুসারে, আগামী 5 ই নভেম্বর থেকে ভর্তুকিহীন ডিজিটাল রেশন কার্ডের জন্য আবেদনপত্র গ্রহণ করা হবে। সংশ্লিষ্ট 10 নম্বর ফর্ম পাওয়া যাবে নির্দিষ্ট দোকান এবং খাদ্য দপ্তরের অফিসে। এই ফর্ম সাধারন মানুষকে বিলি করার জন্য রাজ্য জুড়ে বিশেষ শিবির খোলা হবে সেদিন। এছাড়া আপনি যদি চান তাহলে অনলাইনে আবেদনপত্র জমা দিতে পারেন। প্রসঙ্গত এই প্রথমবার পশ্চিমবঙ্গে খাদ্য দপ্তরে রেশন কার্ডের আবেদন পত্র অনলাইনে জমা দেওয়ার সুযোগ পাওয়া যাবে।

খাদ্য দপ্তর এর তরফ থেকে জানানো হয়েছে, www. wbpds.gov.in এই ওয়েবসাইটে গিয়ে 10 নম্বর ফর্ম ডাউনলোড করতে হবে। ফর্ম ফিলাপ করার পর জমা দেওয়া পর্যন্ত পুরো বিষয়টি আপনি অনলাইনে অর্থাৎ মোবাইলে বা কম্পিউটারে করতে পারবেন। অনলাইনে আপনার পরিচয় পত্র হিসেবে আধার কার্ডের ছবি আপলোড করতে হবে। আবেদন করার 30 দিনের মধ্যে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে আপনার ঝাঁ-চকচকে নতুন ডিজিটাল রেশন কার্ড চলে আসবে। এই নতুন রেশন কার্ডটি হাতে পাওয়ার পরেই আপনার পুরনো রেশন কার্ড বাতিল হয়ে যাবে।

নতুন এই স্মার্ট রেশন কার্ড নিয়ে গ্রাহকরা ভর্তুকিহীন জিনিসপত্র (তেল, সাবান মসলা, টুথপেস্ট) ইত্যাদি কিনতে পারবেন। এবং এই কার্ড ব্যবহার করে বেসরকারি বিপণিকেন্দ্রে থেকেও জিনিস কিনলে যাতে ছাড় পাওয়া যায় তারও ব্যবস্থা করা হবে বলে জানিয়েছে।সোমবার কয়েকটি বেসরকারি সংস্থার সঙ্গে বসতে চলেছেন খাদ্য দপ্তর আধিকারিকরা। এনিয়ে খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন,’ আবেদনপত্র জমা পড়া 30 দিনের মধ্যে রেশন কার্ড হাতে পেয়ে যাবেন আবেদনকারীরা। যে সমস্ত বিত্তশালী মানুষদের দু টাকা কেজি চালের ডিজিটাল রেশন কার্ড রয়েছে তাদের প্রত্যেককে অনুরোধ করা হচ্ছে যেন তারা এ রেশন কার্ড ছেড়ে 10 নম্বর ফর্ম ফিলাপ করে জমা দেন।

5 নভেম্বর থেকে ডিজিটাল রেশন কার্ড সংক্রান্ত স্পেশাল ক্যাম্প সারা রাজ্য জুড়ে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। বিডিও অফিস, বুরো অফিস, পুরসভার অফিসের আবেদনপত্র জমা দেওয়া যাবে। এ সমস্ত সরকারি অফিসে গিয়ে বিত্তশালী মানুষেরা সরাসরি 10 নম্বর ফর্ম জমা দিতে পারেন। এর আগে 9-27 সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রথম পর্যায়ের ক্যাম্প অনুষ্ঠিত করেছিল খাদ্য দপ্তর। এই দিনগুলোতে মোট 92 লক্ষ আবেদন পত্র জমা পড়েছিল। এবার 10 তারিখ পর্যন্ত কত ফর্ম জমা পড়ে সেটাই দেখার বিষয়।