নতুন খবরবিশেষলাইফ স্টাইল

সাগরকে দূষণমুক্ত করতে জাহাজের নকশা বানালো 12 বছরের বালক, কীর্তি দেখে আশ্চর্য গোটা বিশ্ব!

মৃত্তিকা হোক বা জল দূষণের পরিমাণই হোক না কেনো দিন দিন বেড়েই চলেছে, আর এই আবর্জনা দূষণকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে এক ১২ বয়সের বালক বানিয়ে ফেলল সাগরের আবর্জনা দূষণ মুক্ত করা জাহাজের নকশা। তার নাম হলো হাজিক কাজী । এই 12 বছর বয়সি বালক এমন জাহাজের নকশা বানিয়েছে যে কয়েকটি ধাপে সমুদ্রকে আবর্জনা মুক্ত করে তুলবে। যেখানে  দিন দিন সাগরের আবর্জনা দূষণ বৃদ্ধির ফলে উদ্ভিদ কুল ও প্রাণীকুল বিলুপ্তির পথে এসে দাঁড়িয়েছে সেখানে একমাত্র এই জাহাজটি পারবে এই সমস্যা সমাধান করতে।

এছাড়াও তথ্য থেকে জানা গিয়েছে সারা বিশ্বে মোট আবর্জনার পরিমাণ হল ৫ ট্রিলিয়ন। অর্থাৎ আপনি জানলে অবাক হবেন, শুধু সাগরের আবর্জনার পরিমাণ একটি মহাদেশের প্রায় সমতুল্য। শুধু তাই নয় এই আবর্জনা নীল সমুদ্রের ১২ কিলোমিটার গভীর বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে রয়েছে। আর যার ফলে অনেক প্রাণী প্রায় অবলুপ্ত হয়েও গেছে। হাজিক কাজীর সম্প্রতি থেকে এই জাহাজ তৈরির পরিকল্পনা সম্বন্ধে কিছু বিশেষ তথ্য জানা গিয়েছে, যে গুলি হল ,

# স্কুলের প্রজেক্ট:-

হাজিকের ছোটবেলা থেকেই ইচ্ছা কিভাবে পরিবেশকে দূষণমুক্ত করা যায় , এবং সে অনেকবার সমুদ্রকে দূষণমুক্ত করার কথাও ভেবেছে । আর এর মধ্যেই স্কুলের পক্ষ থেকে তার কাছে এলো সমুদ্রের দূষণমুক্ত করার প্রজেক্ট । আর এটি ছিল তার স্বপ্নকে সত্যি করার প্রথম পদক্ষেপ।

# বেসিনে তার মুখ ধোয়া :-

হ্যাঁ, আপনি ঠিক শুনেছেন । হাজিক  একদিন ভোরবেলা দাঁত মাজতে মাজতে বেসিনের জল  ঘুড়ির মতো পাক খেতে খেতে নিচে চলে যাচ্ছিল এবং পেস্টের ফেনা গুলি উপরে থেকে যাচ্ছিল। এখান থেকেই জাহাজ এর কার্যনীতি সম্বন্ধে আইডিয়া তার মাথায় আসে। আর এই পরিপেক্ষিতে সে জাহাজ তৈরির স্বপ্নে সে আরেক পা এগিয়ে যাই।

# এরভিস জন্ম নিল :-

তার মাথায় আইডিয়া আসতে না আসতেই সে শীঘ্রই জাহাজ তৈরির নকশা বানানো শুরু করে দিল। আর এভাবেই জন্ম নিল এরভিসের । এই কাল্পনিক জাহাজটির কার্যকারী তার সম্বন্ধে জানা গিয়েছে, জাহাজটি মোট তিনটি ধাপে তার কার্য প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে। প্রথম ধাপে জাহাজটি সমুদ্র থেকে আবর্জনা গুলিকে তুলে নেবে , দ্বিতীয় ক্ষেত্রে আবর্জনা গুলিকে চিহ্নিত করবে এবং শেষ ধাপে, আবর্জনা গুলির ব্যবস্থা করবে ।

# জাহাজটির ফিল্টার সংক্রান্ত তথ্য :-

হাজিক জাহাজটির কার্যগত প্রক্রিয়া সম্বন্ধে এর পাঁচটি ফিল্টারের কথা বলেছে। যেখানে জাহাজটি পিছন থেকে মধ্য পর্যন্ত  ফিল্টার গুলি কাজ করবে। এই জাহাজটিতে মোট নটি ফিল্টারের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। যে গুলি হল , ১) ওয়েল ষ্টোরেজ কন্টেনার ,২) ওয়েল স্যাম্পললিং ,৩) লার্জ পাটিকেল স্যাম্পললিং , ৪) মিডিয়াম প্লাস্টিক স্যাম্পলিং , ৫) স্মল পার্টিকেল স্যাম্পলিং,৬) মাইক্রো প্লাস্টিক স্যাম্পলিং, ৭) সেগ্রিগেটর ,৮) স্টোরেজঃ কম্পার্টমেন্ট,  ৯) বায়ো-ডিগ্রেডেবল স্টরেজ।

# এরভিস এর কার্যপ্রণালী :-

জাহাজটি দেখতে হবে একটি সুবিশাল বড় বোটের মত । জাহাজটি নিচে অনেকগুলি সসার লাগানো থাকবে যার দ্বারা জাহাজটি আবর্জনা গুলিকে উপরে টেনে তুলবে। আর এই আবর্জনা গুলিকে স্টোরেজে রেখে নিরীক্ষণ করা হবে এবং আবর্জনার প্রকৃতি অনুযায়ী তার ব্যবস্থাও করা হবে।

এছাড়াও আপনারা জেনে অবাক হবেন, জাহাজটি চলবে হাইড্রোজেন অথবা প্রাকৃতিক গ্যাসে এর প্রভাবে কোনো রকম বায়ু বা জল দূষণ হবে না এমনটাই জানিয়েছেন হাজিক । আর এই কাল্পনিক ডিজাইন যদি বর্তমানে বাস্তবে প্রকাশিত করা যায় তাহলে অনেকটাই রেহায় পাবে সামুদ্রিক জীব তার সাথে সাথে সামুদ্রিক উদ্ভিদরা।

Related Articles

Back to top button