এবার চীনের বিরুদ্ধে টাটার কড়া সিদ্ধান্ত! চরম অস্বস্তির মধ্যে চীন ….

ভারতের সাথে চীনের সীমান্তে যে বিরোধ দেখা দিয়েছিল তা পরবর্তীকালে বাণিজ্য বিরোধে পরিণত হয়েছিল যার দরুন একের পর এক চীনের সাথে করা চুক্তি বাতিল হতে দেখা গিয়েছিল ভারতে। এমনকি এই সীমান্ত বিবাদের জেরে ভারতের একাধিক প্রান্তে চীনা পণ্য বয়কট করার ডাক ও শোনা যাচ্ছিল। তবে এমন ঘটনাও বহুবার লক্ষ্য করা গেছে যেখানে কিছু ব্যবসায়ী নিজেদের দেশের চেয়ে নিজের মুনাফাকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে যে ঘটনা এইবারের দীপাবলীর সময় দেখতে পাওয়া গিয়েছে যেখানে সরকার ও CAIT তরফ থেকে বারবার অনুরোধ করা সত্বেও বহু ব্যবসায়ী চীন থেকে মাল আমদানি করিয়ে ভারতের বাজারে মোটা মুনাফা কামিছে‌।

তবে সমস্যাটা শুধু এখানেই থেমে থাকেনি এছাড়াও এমন বহু কোম্পানি রয়েছে যারা “মেক ইন ইন্ডিয়া” (MAKE IN INDIA) নামের আড়ালে ভারতীয়দের আবেগকে হাতিয়ার করে মোটা মুনাফা কামাচ্ছে, যেখানে এই কোম্পানিগুলি শুধুমাত্র ভারতে অ্যাসেম্বলি করছে এবং অন্যদিকে তাদের প্রোডাক্টের ভিতরে ব্যবহৃত 90% পার্টস চীন থেকে আমদানি করছে। যার ফলে পরিস্থিতি এতটাই জটিল হয়ে দাঁড়িয়েছে যেখানে ভারতকে আত্মনির্ভর করে তোলার জন্য সকল দেশবাসী এবং সরকারকে প্রয়াস আরো তীব্র করতে হবে। তবে এবার ভারতকে আত্মনির্ভর করে তোলার লক্ষ্যে চীনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এখন কোমর বেঁধে মাঠে নেমে পড়েছে টাটা কোম্পানি।

তবে যেমনটা আমরা জানি ইলেকট্রনিক কম্পোনেন্ট তৈরি করার এই লড়াইয়ে চীনের বিরুদ্ধে ভারতকে সবচেয়ে কঠিন লড়াই লড়তে হবে। কারণ গোটা বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে কম দামে ইলেক্ট্রনিকস কম্পোনেন্ট তৈরি করে থাকে চীন। তবে এবার ভারতীয় টাটা কোম্পানি লড়াইয়ের এই চ্যালেঞ্জকে স্বীকার করে মাঠে নেমে পড়েছে, প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা যাচ্ছে এই টাটা কোম্পানি তামিলনাড়ুতে প্রায় 5,000 কোটি টাকা ইনভেসমেন্ট করতে চলেছে যেখানে নতুন প্রোডাকশন প্ল্যান্ট উদ্বোধন করা হবে যেটি ব্যবহৃত করা হবে মূলত ইলেকট্রনিক্স কম্পোনেন্ট তৈরি করার জন্য।

প্রায় 500 একর জমির উপর প্রতিস্থাপন করা হচ্ছে এই প্ল্যান্ট যার ভূমি পূজনের কাজ ইতিমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। আর খুব দ্রুতগতিতে এই কাজ সম্পন্ন করা হবে আগামী দিনে। বলে রাখি, টাটা এই প্ল্যান্টের মধ্যে আইফোন থেকে শুরু করে সমস্ত ফোনের ইলেকট্রনিক্স কম্পোনেন্ট তৈরি করবে। শুধু তাই নয় এই প্ল্যান্ট একবার তৈরি হয়ে গেলে এই প্ল্যান্টে প্রায় 18 হাজার জন চাকরি পাবে কিছু বছরের মধ্যে। বর্তমান দিনে ভারতের বাজারে যেভাবে চাইনিজ কোম্পানিগুলি তাদের অধিপত্য বিস্তার করেছে তা আগামী দিনে উখড়ে ফেলা সম্ভব হবে। আর আগামী দিনে ভারতীয় স্মার্টফোনের কোম্পানি গুলি টাটার কাছ থেকে সস্তায় ইলেকট্রনিক্স কম্পোনেন্ট পেলে নিশ্চিত ভাবে আবারো নিজেদের অধিপত্য বিস্তার করতে সক্ষম হবে। এমনকি টাটার তরফ থেকে এ কথাও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যদি সবকিছু ঠিকঠাক থাকে তাহলে তারা যে 5,000 কোটি টাকার ইনভেসমেন্ট করেছে সেটি কে আরো বাড়িয়ে আগামীদিনে 8,000 কোটি টাকা করে দেবে।