সর্বকালীন রেকর্ড ভেঙে তলানিতে টাকা, শুক্রে সর্বনিম্ন স্তরে পৌঁছল ভারতীয় মুদ্রার দর

বিগত কুড়ি বছরের সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছে গেল ডলারের দাম আর তার সাথে পাল্লা দিয়ে সর্বনিম্ন স্তরে পৌঁছালো ভারতীয় মুদ্রা যা এক প্রকার রেকর্ড নজির গড়ল বলা চলে। এর প্রভাব দেখা গেছে শেয়ার বাজারেও। এ দিন আমেরিকার কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভ তাদের সুদের হার প্রায় ৭৫ বেসিস পয়েন্ট বাড়ানোর ফলে ভারতীয় মুদ্রায়ও পতন অব্যাহত।

এক ডলারের দাম গিয়ে ঠেকেছে ৮১.১৮ টাকা। তবে আমেরিকা জানিয়ে দিয়েছে মূল্যস্ফীতি রুখতেই তাদের এহেন সিদ্ধান্ত। এই নিয়ে ফেডারেল রেট বাড়লো তৃতীয়বারের জন্য। এমনকি আমেরিকার তরফ থেকে জানানো হয়েছে ভবিষ্যতে এরকম পরিস্থিতি চললে সুদের হার আরো উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেতে পারে।

ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের তরফে আরো বলা হয় আমেরিকায় মূল্যস্ফীতি এতটাই বেড়েছে যার ফলে আমেরিকার ভান্ডারে পর্যন্ত মন্দা দেখা দিয়েছে। আর তার জেরেই এদিন শেয়ার মার্কেটেও পতন ঘটেছে।বিদেশীরা প্রায় ২০০০ কোটি টাকা মূল্যের ভারতীয় শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছে। যে কারণে ভারতীয় মুদ্রার গ্রাফ মুখ থুবড়ে পড়েছে।

কিন্তু সকলেই ভবিষ্যতের কথা ভেবে যথেষ্ট আশঙ্কিত কারণ মনে করা হচ্ছে আগামী দিনে যদি ডলারের দাম এভাবেই বৃদ্ধি পেতে থাকে তাহলে এর প্রভাব পড়তে পারে তেল আমদানির ক্ষেত্রেও। ভারত তেল আমদানি করতে যে পরিমাণ অর্থ খরচ করে তা আগামী দিনে আরো বৃদ্ধি পেতে চলেছে। মোটের উপর বলা যেতে পারে বর্তমান পরিস্থিতি ভবিষ্যৎ সময়কে আরো সংশয়ের মধ্যে ঠেলে দিচ্ছে।