বিয়ে অনিশ্চিত, জেনেও সহবাস করলে তা কখনই ধর্ষণ নয়! জানিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট

আদালত থেকে জারি করা হল একটি নতুন নিয়ম । আর আজ আমরা সে সম্বন্ধে আলোচনা করব, বিয়ে হবে না এটা জেনেও যদি কোনো মহিলা দিনের পর দিন কোন পুরুষের সাথে সহবাস করে থাকে, আর সেই পুরুষ যদি কোন কারণে তাকে বিয়ে করতে অস্বীকার করে, তাহলে সেই মহিলাটি তার বিরুদ্ধে এফআইআর করতে পারবেনা । অথবা আদালতে তার বিরুদ্ধে কিছু মামলা করতেও পারবে না, দেশের শীর্ষ আদালত সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ জারি করল।বুধবার দিন কোর্টে চলা একটি মামলাটির সময় সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশ জারি করেছিল।

সিআরপিএফ এর একটি ডেপুটি কমান্ডারের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তুলেছিলেন সেলস টেক্সের এক সরকারি মহিলা কমিশনার। প্রায় ৫ , ৬ বছর ধরে তারা লিভ- ইন্ রিলেশনে ছিলেন। তারা প্রায় দিনই মাঝে মাঝে একসঙ্গে থাকতেন এবং কখনো বা একে অপরের বাড়িতে গিয়েও থাকতেন , এ কারণে অন্য সম্পর্কের মত এই সম্পর্কটি কেউ সুপ্রিম কোর্ট সাধারণ সম্পর্ক বলে নির্ধারণ করেন।

১৯৯৮ সাল থেকে সিআরপিএফের পুরুষ আধিকারিক টিকে চিনতেন মহিলা অভিযোগকারী। তিনি হাইকোর্টে অভিযোগ করেছেন যে, ২০০৮ সালে তাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন সেই ডেপুটি কমান্ডারটি এবং তিনি তাকে বলপূর্বক ধর্ষণ ও করেছিলেন বহুবার।২০১৬ সাল পর্যন্ত তাদের শারীরিক সম্পর্ক চলে কিন্তু ২০১৪ সালে জাতপাতের কারণে সিআরপিএফ এর সেই আধিকারিকটি তাকে বিয়ে করতে আপত্তি জানায়। শুধু তাই নয় ২০১৬ সালের কিছুদিনের মধ্যেই আরেক অন্য মহিলার সাথে সেই আধিকারিকের বিবাহের সম্বন্ধ ঠিক হয়। এবং পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখার পর শীর্ষ আদালত জানায় প্রতিশ্রুতি দুধরণের হয় যেখানে সবকিছু জেনেও বিয়ে হওয়ার কোন সম্ভাবনা না থাকলেও দিনের পর দিন একসাথে থাকা এবং পরে প্রতিশ্রুতি ভেঙে গেলে, তাকে মিথ্যা প্রতিশ্রুতির অভিযোগ দেওয়া একবারে কাম্য নয়।

অর্থাৎ একটি প্রতিশ্রুতি তখনই মিথ্যা প্রতিশ্রুতি প্রমাণিত হয় যখন প্রতিশ্রুতির পিছনে কোন উদ্দেশ্য থাকে। কোন উদ্দেশ্য ছাড়াই প্রতিশ্রুতি ভেঙ্গে যাওয়াকে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি বলে গণ্য করা হবে না।