ইতিহাস গড়ল কাশ্মীর, এই প্রথম সরকারি ভবনে উড়ল ভারতীয় তেরঙা

একথা কারও জানতে বাকি নেই যে জম্মু- কাশ্মীর থেকে ধারা 370 কে প্রত্যাহার করে নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। আর তারপরে এই দুই রাজ্যকে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করেছে মোদী সরকার। তবে এখন জম্মু-কাশ্মীরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক অবস্থাতেই রয়েছে। ধীরে ধীরে নিজের গতি ফিরে পাচ্ছে কাশ্মীর। এখনো কয়েকটি ক্ষেত্রে রয়েছে বিশেষ নিষেধাজ্ঞা জারি। 370 ধারা প্রত্যাহারের পর আজ রবিবার দিন এই প্রথম কাশ্মীরের সরকারি ভবনগুলো থেকে সরিয়ে দেওয়া হলো জম্মু-কাশ্মীরের নিজস্ব পতাকা।

তার বদলে সেখানে ওড়ানো হলো ভারতীয় তেরঙা।জম্মু- কাশ্মীরে প্রশাসনিক সূত্রে জানতে পারা গেছে এবার থেকে কাশ্মীরের এই সরকারি ভবনগুলোতে ভারতের জাতীয় পতাকায় দেখা যাবে, অন্য কোন প্রকার পতাকা নয়।যেমন কি জানেন জম্মু কাশ্মীরের 370 ধারা বাতিল হওয়ার আগে পর্যন্ত জম্মু-কাশ্মীরের পতাকা ছিল আলাদা।একই সঙ্গে তখন ভারতের রাষ্ট্রীয় পতাকার অবমাননা করা হলে তখন সেটাকে আইনত অপরাধ হিসাবে গণ্য করা হতো না।

তবে ইতিমধ্যেই জম্মু-কাশ্মীরের নিজস্ব পতাকা গুলিকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। গত সপ্তাহ পর্যন্ত এই পতাকা গুলি আটকানো ছিল সরকারি ভবনগুলিতে। রবিবার দিনই কাশ্মীরের এই পতাকাগুলি খুলে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার৷ 1949 সালের 17 ই অক্টোবর ভারতীয় সংবিধানে যুক্ত করা হয়েছিল অনুচ্ছেদ 370 কে। জম্মু-কাশ্মীরের বাসিন্দারা দৈত্ব নাগরিকত্ব পেতেন। সাথে তাদের রাজ্যের পতাকাও ছিল আলাদা।আর তখন ভারতীয় জাতীয় পতাকার অবমাননা কে অপরাধ হিসাবে গণ্য করা হতো না। তবে শুধু তাই নয় ভারত সরকারের সংসদের আইন আনার ক্ষমতা ছিল না তখন সব ক্ষেত্রে। প্রতিরক্ষা, বিদেশ ও যোগাযোগ ছাড়া আর কোনও আইন জম্মু-কাশ্মীরে লাগু হত না। আর কোন প্রকার আইন লাগু করতে গেলে সে রাজ্যের বিধানসভার সম্মতি দরকার পড়তো সরকারের।

দ্বিতীয়বার সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় ফেরার পর মোদি সরকার এবার জম্মু-কাশ্মীর থেকে অনুচ্ছেদ 370 কে প্রত্যাহার করেছে। একইসঙ্গে সরকার লাদাখের দীর্ঘদিনের দাবি মেনে নিয়ে লাদাখ ও জম্মু-কাশ্মীর কে দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করেছে। বর্তমানে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ এখন আলাদা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল।বিধানসভা থাকবে জম্মু-কাশ্মীরে তবে পুলিশ থাকবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের অধীনে। তবে এক্ষেত্রে লাদাখে আলাদা বিধানসভা থাকবে না। ইতিমধ্যে রাজ্যসভা ও লোকসভায় অনুচ্ছেদ 370 বিলোপের প্রস্তাব পাশ করাতে সম্মত হয়েছে কেন্দ্র।একইসঙ্গে পাশ হয়েছে জম্মু-কাশ্মীরের পুনর্গঠন বিল। তবে বলে রাখি, জম্মু-কাশ্মীর থেকে দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে অনুচ্ছেদ 370 রদের দাবি করে এসেছিল গেরুয়া শিবির অবশেষে তা সফল হয়েছে।

একইসঙ্গে পাশ হয় জম্মু-কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল। বলে রাখি, জম্মু-কাশ্মীর থেকে দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে অনুচ্ছেদ 370 রদের দাবি করে এসেছে গেরুয়া শিবির।জনগোষ্ঠী ও ধর্মের ভিত্তিতে জম্মু হল হিন্দু-শিখ প্রধান, কাশ্মীর মুসলিম এবং লাদাখ বৌদ্ধ প্রধান এলাকা৷ তারপরেই সিদ্ধান্ত হয় এবার কাশ্মীরের মাটিতে উড়বে ভারতের জাতীয় পতাকা৷