প্রধানমন্ত্রীর ডাকা নীতি আয়োগের ডাক ফিরিয়ে দিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়…

আগামী 15 ই জুন নীতি আয়োগ এর পরিচালনা সমিতি বৈঠক ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।আর দ্বিতীয় দফায় প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পরেই তারা টাকা প্রথম বৈঠক হল এটি যেটিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার আমন্ত্রণ ফিরিয়ে দিলেন।রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি স্পষ্ট জানিয়েছেন তিনি এতে যোগ দিবেন না।গত শুক্রবার দিন মোদিকে চিঠি লিখে তিনি এ কথা জানিয়ে দিয়েছেন।

এই দিন মমতা ব্যানার্জি জানান নীতি আয়োগ এর অর্থ বরাদ্দের কোন ক্ষমতা নেই । বিকল্প হিসাবে তিনি চাইছেন জাতীয় উন্নয়ন পরিষদ কে কেন্দ্র ফের কার্যকর করুক। সে কথাও প্রধানমন্ত্রীকে চিঠির মাধ্যমে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এ দিনই দিল্লিতে বিজেপি মুখপাত্র শাহনওয়াজ হুসেন অভিযোগ করেছেন, ”মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো মানছেন না।


যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো মেনে কেন্দ্র-রাজ্য একসঙ্গে কাজ করার লক্ষ্যেই নীতি আয়োগের বৈঠক ডাকা হয়েছে। সেখানেই উনি আসছেন না।’’মুখ্যমন্ত্রী গেলে সঙ্গে রাজ্যের মুখ্যসচিবেরও যাওয়ার আমন্ত্রণ ছিল। কিন্তু মমতা না যাওয়ায় রাজ্যের কোনও আমলার তাতে যোগ দেওয়ার সুযোগ নেই। ফলে নীতি আয়োগের বৈঠকে রাজ্যের কোনও প্রতিনিধিত্ব থাকছে না। রাজ্যের বক্তব্য জানানোর সুযোগও থাকছে না বলে নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে।কেন নীতি আয়োগের বৈঠকে তিনি যাচ্ছেন না, সে বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতে বিস্তারিত  ব্যাখ্যা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

তিনি লিখেছেন, ‘যোজনা কমিশনের পরিবর্তে 2015-এর 1 জানুয়ারি নীতি আয়োগ নামে নতুন প্রতিষ্ঠান তৈরি হয়। এই প্রতিষ্ঠানের কোনও আর্থিক ক্ষমতা নেই। রাজ্যের বার্ষিক পরিকল্পনায় সহায়তা দেওয়ার ক্ষমতাও নেই আয়োগের। প্রতিষ্ঠানের   সিনিয়র অফিসাররা পর্যন্ত আরও ক্ষমতা চেয়ে প্রকাশ্যে বিবৃতি দিচ্ছেন। রাজ্যগুলিকে অর্থ বরাদ্দের ক্ষমতা চেয়েছেন তাঁরা।’ এই পরিপ্রেক্ষিতেই মুখ্যমন্ত্রী চিঠিতে জানিয়েছেন, ‘আঞ্চলিক বৈষম্য দূর করার জন্য নীতি আয়োগের অর্থ বরাদ্দের ক্ষমতা জরুরি।

একই কথা বলেছেন দেশের এক প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী তথা অর্থনীতিবিদও।’ এই অবস্থায় তাঁর পক্ষে বৈঠকে যোগ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।