১৫ দিনের মধ্যে শিক্ষক নিয়োগের ফলপ্রকাশ

বিধানসভা ভোটের আগেই জঙ্গলমহলের মন পাওয়ার চেষ্টা করছে রাজ্য সরকার। শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষার ১৫ দিন যেতে না যেতেই সাঁওতালি মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ করেছে স্কুল সার্ভিস কমিশন। নতুন নিয়মে কমিশন এই প্রথম কোনও শিক্ষক নিয়োগের প্যানেল প্রকাশ করেছে।

সূত্রে খবর, সাঁওতালি মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগে প্রায় ৫০০ শূন্যপদ রয়েছে।  জানুয়ারির ২৮, ২৯, ও ফেব্রুয়ারি মাসের ২, ৩ তারিখে পরীক্ষা নেওয়া হয়েছিল। বাঁকুড়া, বীরভূম, পশ্চিম মেদিনীপুর,  ঝাড়গ্রাম, পুরুলিয়াতে অধিকাংশ সাঁওতালি মাধ্যম স্কুল। নতুন নিয়ম মেনে এসএসসি প্রথম সাঁওতালি মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করে। সোমবার কমিশনের ওয়েবসাইট থেকে ফলাফল জানা যায়৷ জানা গিয়েছে, মেধা তালিকায় থাকা চাকরিপ্রার্থীদের সুপারিশ পত্র পাঠিয়ে দেবে কমিশন।

২০২০ এর ডিসেম্বরে, রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতর শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে নতুন নিয়ম প্রকাশ করে। নতুন নিয়ম অনুযায়ী,  একাডেমিক স্কুল এবং ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া তুলে দেওয়া হয়েছে। সাঁওতালি মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে টেট এবং তারপরে বাংলা-ইংরেজি-সহ বিষয়ভিত্তিক পরীক্ষা নেওয়া হয়। উচ্চ প্রাথমিক এবং নবম-দশম স্তরে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি করে এসএসসি।

২১ ডিসেম্বর সাঁওতালি মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি করে এসএসসি। বিজ্ঞপ্তি জারি করার  দু-মাসের মধ্যেই কমিশন নিয়োগের প্রক্রিয়া শেষ করল। গত লোকসভা নির্বাচনে আদিবাসীরা মুখ ফিরিয়েছে শাসকদলের থেকে। অলচিকি ভাষায় বিভিন্ন ক্লাসের বই তৈরি করা থেকে শুরু করে পরীক্ষা নেওয়ার মত একাধিক ব্যবস্থা করেছে রাজ্য সরকার। মাধ্যমিকের প্রশ্নপত্র অলচিকি ভাষায় করার জন্য উদ্যোগী হয়েছে রাজ্য সরকার৷ কিন্তু দু’মাসের মধ্যে শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা নেওয়া এবং ফল প্রকাশ করা ইতিবাচক পদক্ষেপ  বলে মনে করছেন স্কুল শিক্ষা দফতরের আধিকারিকদের একাংশ।

রাজ্যে বিশেষত উচ্চ প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ প্রায় সাত বছর হতে চলল এখনো পর্যন্ত প্রক্রিয়া শেষ করতে পারেনি কমিশন। তার মধ্যেই সাঁওতালি মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া শেষ করে দিয়ে একটা ইতিবাচক বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করছে সরকার চাকরিপ্রার্থীদের কাছে তেমনটাই মনে করা হচ্ছে৷