NEET, JEE পরীক্ষা না পিছোলে পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছে দেবার আশ্বাস সোনু সুদ-এর

করোনা সংক্রমণ রুখতে যখন দেশজুড়ে জারি করা হয়েছিল লকডাউন তখন একাধিক মানুষ অনেক সমস্যায় পড়েছিলেন সেই সময় মানুষের বিপদে পাশে কেউ থাকুক না থাকুক ছিলেন বলিউডের অভিনেতা সনু সুদ। যিনি এই লকডাউন চলাকালীন ভিন্ন রাজ্যে আটকে পড়া পরিযায়ী শ্রমিকদের নিজের দায়িত্বে বাড়ি ফিরিয়ে দেবার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন, এর পাশাপাশি গরীব অসহায় মানুষদের মুখে খাবার তুলে দিয়েছিলেন তিনি ঝড়-বৃষ্টিতে গৃহহীন মানুষদের মাথায় তুলে দিয়েছিলেন ছাদ। অর্থাৎ এক কথায় এটা বলা যেতে পারে পর্দাতে একাধিক বার, ভিলেনের রোলে দেখা মিললেও বাস্তবে রক্তমাংসের নায়ক হলেন সনু সুদ।

 

আর এবার তিনি NEET, JEE পরীক্ষার্থীদের পাশে এসে দাঁড়ালেন এবং সেই সব পরীক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বার্তা দিলেন কোন চিন্তা নেই আমি তোমাদের পাশে আছি।তিনি জানালেন এই করোনা আবহের যদি এইসব পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা হয় তাহলে পড়ুয়াদের সবরকম সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসবেন তিনি। তিনি টুইটে জানান তোমরা যদি কোথাও আটকে পড়ো তাহলে আমায় জানিও কোন এলাকায় আছো আমি তোমাদের পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছাবার ব্যবস্থা করে দেব, কোনো পরীক্ষার্থীর পরিকাঠামোর অভাবে পরীক্ষা দিতে পারবে না এমন ঘটনা ঘটবে না।

উল্লেখ্য, এক অসহায় ছাত্র সনু সুদ কে টুইটারে একটি ভিডিও পাঠিয়েছিলেন যেখানে তিনি কাঁদতে কাঁদতে অভিনেতাকে জানান তার যে পরীক্ষা কেন্দ্র টি পড়েছে সেটিতে পৌঁছাতে তাকে প্রায় 25 থেকে 30 হাজার টাকা খরচ করতে হবে আর এত টাকার খরচ বহন করা তার পক্ষে সম্ভব নয়। আর তারপরই সেই টুইট টির রিপ্লাই দিয়ে অভিনেতা জানান যদি এই বছর NEET ও JEE এর পরীক্ষা হয় তাহলে প্রতিটা ছাত্রছাত্রীকে যারা গুজরাট, বিহার, অসম এবং বন্যা কবলিত এলাকায় আটকে পড়েছেন তারা আমার সাথে যোগাযোগ করেন তোমরা কোথায় থাকো? তোমাদের পরীক্ষা কেন্দ্রের এলাকা কোথায়? আমাকে জানিও আমি তোমাদের ব্যবস্থা করে দেবো পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছাবার।

এর আগে অভিনেতাকে কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্দেশ্যে টুইট করতে দেখা যায় যেখানে তিনি NEET ও JEE পরীক্ষার্থীদের বর্তমান পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে পরীক্ষা পেছানোর জন্য আবেদন করতে। তিনি জানিয়েছিলেন এরকম COVID-19 এর পরিস্থিতিতে কখনোই আমরা ছাত্র-ছাত্রীদের জীবন ঝুঁকির মধ্যে ঠেলে দিতে পারিনা।অভিনেতার বক্তব্য গোটা দেশজুড়ে প্রায় 26 লক্ষ ছাত্র-ছাত্রীকে রয়েছে এবং বহু ছাত্রছাত্রীরা বিহার থেকে পরীক্ষায় বসে, সেখানকার বিস্তীর্ণ এলাকা এখন বন্যা কবলিত অঞ্চলে পরিণত হয়েছে তাছাড়া অসমেও বন্যার চিত্র দেখা মিলেছে।

 

পাশাপাশি গুজরাটও পরীক্ষা স্থগিত রাখার আবেদন করেছে তাই এই পরিস্থিতিতে ছাত্র-ছাত্রীদের ভয় পাওয়াটা খুবই স্বাভাবিক বিষয়। প্রসঙ্গত,‌ এবছর JEE পরীক্ষার হওয়ার কথা রয়েছে আগামী 1 থেকে 6 সেপ্টেম্বরের মধ্যে এবং আগামী 13 সেপ্টেম্বর NEET পরীক্ষার দিন ধার্য করা হয়েছে ইতিমধ্যে ছাত্র-ছাত্রীরা অ্যাডমিট কার্ডও ডাউনলোড করতে শুরু করে দিয়েছে কিন্তু করোনার আবহে পরীক্ষা পেছানোর জন্য একাধিক রাজ্য ইতিমধ্যে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জানিয়েছে।