চরম দারিদ্র্যের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী যোগীর ছোট বোন, দাদার জয়ের জন্য করেন প্রতিদিন পূজার্চনা

উত্তরপ্রদেশের প্রধানমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের জীবন খুবই সরল এবং সাধারন। সাত ভাই বোনের মধ্যে পঞ্চম সন্তান হলেন যোগী আদিত্যনাথ। একটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হওয়া সত্বেও তাঁর জীবন খুবই সরল। আজও যোগী আদিত্যনাথের ছোট বোন ছোট একটি খাবারের দোকান থেকে জীবিকা নির্বাহ করেন এবং পরিবারের সকলের ক্ষুধা নিবারণ করেন। চলুন জেনে নেওয়া যাক ছোট ভাই যোগী আদিত্যনাথের আরো একবার মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার প্রচারের জন্য ছোট বোন কি কি করছেন।

বড় ভাইয়ের সাফল্য কামনা করে যোগী আদিত্যনাথের ছোট বোন প্রতিদিন নীলকান্ত মহাদেবের কাছে প্রার্থনা করেন এবং সেই প্রসাদ খেয়ে থাকেন প্রত্যেকদিন। ভাইয়ের সঙ্গে বছরের পর বছর দূরত্ব থাকলেও মনের দিক থেকে আজও তারা মনের দিক থেকে রয়েছেন ভীষণ কাছাকাছি।

যোগী আদিত্যনাথ মূলত উত্তরাখণ্ডের যমকেশ্বর অঞ্চলের বাসিন্দা। সেখানকার ছোট্ট গ্রাম পাচুরে তাঁর জন্ম। যমকেশ্বরে এক গুরুর সান্নিধ্যে এসে তিনি সন্ন্যাস গ্রহণ করেছিলেন। আজ তিনি উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী। বিজেপির নেতৃত্ব দিয়ে তিন বছরের পর বছর লড়াই করে চলেছে এবং উত্তর প্রদেশকে আরো বেশি এগিয়ে নিয়ে চলেছে। কিছুদিন আগেই যোগী আদিত্যনাথের বাবা মারা গেছেন।

সাত ভাই বোনের মধ্যে সপ্তম সন্তান হলেন শশী, যিনি যোগী আদিত্যনাথের বোন। যোগী আদিত্যনাথের বোন, শশীর একটি ছোট দোকান আছে। তাঁর বিয়ে হয় কোথার গ্রামের পূর্ন সিং পায়েলের সঙ্গে। প্রায় ২৮ বছর ভাইকে রাখি না বাঁধতে পারলেও আজও তিনি মন থেকে ভাইকে ভালোবাসেন। আগামী নির্বাচনের জন্য তিনি প্রতিনিয়ত ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করে চলেছেন।

যোগী আদিত্যনাথ যেহেতু ১৯৯৪ সালে সন্ন্যাস গ্রহণ করেছিলেন তাই বহু বছর বোনের হাতের রান্না তাঁর খাওয়া হয়নি, এমনকি বোনের হাত থেকে রাখি বাঁধতে পারেননি তিনি। ছোটবেলা থেকেই যোগী আদিত্যনাথ ভীষণভাবে গম্ভীর প্রকৃতির ছিলেন এবং একটু বড় হতে না হতেই তিনি সন্ন্যাস ধর্ম গ্রহণ করেন এবং পরিবার থেকে আলাদা হয়ে যান। কিন্তু এত কিছুর পরেও ভাইবোনের মধ্যে সেই ভালোবাসা আজও বর্তমান।