চলতি সপ্তাহে সিঙ্গুরে চাই শিল্প, সিঙ্গুরে শিল্প স্থাপনের দাবী নিয়ে সবর হল বিজেপি সরকার‌।

চলতি সপ্তাহে সিঙ্গুরে চাই শিল্প, সিঙ্গুরে শিল্প স্থাপনের দাবী নিয়ে এবার সবর হলো বিজেপির সরকার। দলীয় সূত্রের খবর অনুযায়ী 14 ই জুন বিজেপি সমাবেশ করতে চলেছে হুগলি জেলায়। সূত্র অনুসারে আরও জানতে পারা যায় যে এই সমাবেশের নেতৃত্ব দিবেন সদ্য নির্বাচিত লকেট চট্টোপাধ্যায়। লোকসভা নির্বাচনে লকেট চট্টোপাধ্যায় জিতে আশ্বাস দিয়েছিলেন টাটাদের সিঙ্গুরে ফিরিয়ে আনবেন তিনি। তিনি দাবি করেছিলেন সিঙ্গুরে শিল্প গড়ে তুলবেন।

সিঙ্গুরে শিল্পস্থাপনের দাবি নিয়ে এবার সরব হল বিজেপি। চলতি সপ্তাহেই সিঙ্গুরে শিল্প গড়ে তুলতে চাই! হুগলি জেলা বিজেপি সমাবেশ করতে চলেছে। দলীয় সূত্রে খবর,সম্ভবত 14 জুন এই সমাবেশ হবে। সমাবেশে নেতৃত্ব দেবেন সদ্য নির্বাচিত লকেট চট্টোপাধ্যায়। আইন শৃঙ্খলার পাশাপাশি রাজ্যে কর্মসংস্থান তৈরি করাকেই মূল হাতিয়ার করতে চাইছে বিজেপি। আর এই পরিকল্পনা কে কাজে লাগিয়ে রাস্তায় নেমে পড়ল বিজেপি।
টাটাদের ন্যানো কারখানা নিয়ে মমতার ধর্নায় সেই সময় সমর্থন জানিয়েছিল তত্কালীন বিজেপি। রাহুল সিনহার নেতৃত্বে রাজনাথ সিং এসেছিলেন টাটাদের কারখানার বিরোধিতা আন্দোলনেও। রাজ্যের শিল্প সম্ভাবনায় সিঙ্গুর আন্দোলনে ধাক্কা খেয়েছে একথা 2019 সালে এসে নিজেই স্বীকার করে নিলেন মুকুল রায়। সোমবার দিন দিল্লিতে বিজেপি নেতাদের স্পষ্ট স্বীকার উক্তি সিঙ্গুর থেকে টাটাদের তাড়িয়ে ধাক্কা খেয়েছে রাজ্যের শিল্পের সম্ভাবনা।এদিন মুকুল রায় জানান এত বছর পর আমি আমার ভুল স্বীকার করছি সেদিন ভুল করেছিলাম। টাটাদের ছাড়া রাজ্যে শিল্প সম্ভাবনায় ধাক্কা খেয়েছি, এদিন তিনি বলেন টাটাদের কারখানা বিরোধিতার সিদ্ধান্ত করা ভুল ছিল।

রাজধানীতে মুকুল রায় যেভাবে স্বীকার করে নিলেন যে টাটাদের কারখানার বিরোধিতার সিদ্ধান্ত ভুল ছিল, ঠিক সেভাবেই রাজ্য বিজেপি এবার 180 ডিগ্রি ঘুরে দাঁড়িয়ে মনে করছে সিঙ্গুরে শিল্প চাই। বোধোদয় হল বটে, কিন্তু অনেক দেরিতে। যেমন কি আপনারা সকলেই জানেন 2006 ও 2007 সালে সিঙ্গুরের কৃষি জমি বাঁচাতে মমতা আন্দোলনে চলে গিয়েছিল বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের সরকার। আর 2009 সালে সিপিএমকে হারিয়ে হুগলি জেলা জয় করেছিল তৃণমূল কংগ্রেসের সরকার। তবে এবার সেই হুগলিতে ফুটেছে পদ্ম ফুল, যা ফুটিয়েছেন লকেট চট্টোপাধ্যায়।

আর তাতেই অস্বস্তি বাড়িয়েছে শাসক দলের। এবার সিঙ্গুরে শিল্প চাই – সমাবেশ করে বদল আনতে চাইছে বিজেপি।