পুলিশি জেরার মুখে রাজের উপর চিৎকার শিল্পার ,কেঁদে ফেললেন পুলিশের সামনেই

পর্নোগ্রাফি মামলায় ইতিমধ্যেই রাজকুন্দ্রা জেল হেফাজতের মেয়াদ বেড়েছে। আগামী ১৪ দিন ফের শিল্পা শেট্টির স্বামীকে জেল হেফাজতে থাকার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। পর্নকান্ড রাজ কুন্দ্রার গ্রেপ্তারের পর থেকেই একের পর এক বিস্ফোরক তথ্য সামনে এসেছে।১৯ জুলাই গ্রেপ্তার করা হয় রাজকুন্দ্রা কে। গ্রেফতারির চারদিন পর ২৩ শে জুলাই মুম্বাই ক্রাইম ব্রাঞ্চ প্রায় ৬ ঘন্টা ধরে জেরা করেন রাজ পত্নী শিল্পা শেট্টিকে।

জানাযায় শিল্পাকে যে ঘরে মুম্বাই ক্রাইম ব্রাঞ্চ এর অফিসাররা রেখেছিলেন সেই ঘরে রাজ কুন্দ্রা কে নিয়ে এসে মুখোমুখি জেরা করতে চান অফিসাররা। সেই সময়ই হঠাৎই চিৎকার করে ওঠেন অভিনেত্রী। কয়েকজন পুলিশের সামনেই চিৎকার করে বলেন ‘রাজ এর জন্য গোটা পরিবারের নাম ডুবেছে, রাজ এই অ্যাপ বা ব্যবসার কথা তাকে জানায়নি।এই ঘটনার পর বহু প্রজেক্টর হাত থেকে বেরিয়ে গিয়েছে’ বলে অভিযোগ করেন অভিনেত্রী। তদন্তকারী অফিসারদের সামনেই কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি।

শিল্পাকে কাঁদতে দেখে রাজ কুন্দ্রা স্ত্রীকে বোঝানোর চেষ্টা করেন এবং বারবার বলতে থাকেন তিনি নির্দোষ। পর্নোগ্রাফি নয় বরং এরোটিকা ফিল্ম বানিয়ে ছিলেন তিনি এই অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই বলেও বারবার দাবি করেন রাজ। শিল্পাকে সম্পূর্ণ নির্দোষ না বললেও তদন্তকারী অফিসারা জানান শিল্পার সঙ্গে তাদের এই মামলার কোনো যোগাযোগ নেই। শিল্পা অবশ্য নিজেও জানিয়েছেন রাজের অ্যাপ এর সম্পর্কে তার কোন ধারণা ছিল না। তবে স্বামীর পক্ষ নিয়ে তিনি এও বলেছেন অন্যান্য অতিথি প্ল্যাটফর্ম এর বিষয়বস্তু যথেষ্ট অশ্লীল হয় কোন এরোটিকার মধ্যে পার্থক্য বোঝানোর চেষ্টা করেন শিল্পা।

তদন্তকারী অফিসাররা এদিন শিল্পার ব্যক্তিগত জীবন ও ব্যাংক অ্যাকাউন্টের বিষয়ে তাকে জিজ্ঞাসা করেন। অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টি স্পষ্ট জানিয়ে দেন রাজের কোন ব্যবসার ব্যাপারে তিনি কিছু জানতেন না। তার কিছু ব্যাবসার পাটনার ছিলেন ঠিকই।সেই সব লিখিত ভাবে রয়েছেন।ব্যাবসার কাজ সামলাতেন রাজই।