আবারো খান পরিবারে হতে চলেছে ডিভোর্স! ৫ বছর আগেই হয়েছিল মালাইকা আরবাজ আলাদা, এবার

খান পরিবারে যেন শনি ঢুকেছে। একদিকে যেমন অবিবাহিত থেকে গেছেন সালমান খান তেমন অন্যদিকে ঘর ভেঙেছে আরবাজ খানের। নিশ্চিন্ত হয়েছিলেন সেলিম খান শুধু এই কথা ভেবে, ছোট পুত্র সোহেল খানের সংসার অন্তত কোনদিন ভাঙবে না। কিন্তু সে কথাও মিথ্যা প্রমাণিত হয়ে গেছে। ২৪ বছরের দীর্ঘ দাম্পত্য জীবন এবার পাকাপাকিভাবে সমাপ্ত করতে চলেছেন সোহেল খান এবং তাঁর স্ত্রী সীমা।

শুক্রবার আদালতে বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করেছেন অভিনেতা এবং প্রযোজক সোহেল খান এবং তাঁর স্ত্রী সীমা। পাকাপাকি ভাবে যে এই দম্পতি আলাদা হতে চাইছেন এই কথা থেকে স্পষ্ট হয়ে যায়। এই দম্পতি বিয়ে করেছিলেন ১৯৯৮ সালে। দুই সন্তান রয়েছে তাঁদের। মুম্বাইয়ের পারিবারিক আদালত থেকে সম্প্রতি বের হতে দেখা যায় এই দুজনকে। দীর্ঘদিন ধরে বিবাহ বিচ্ছেদের গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল এই দম্পতির কিন্তু সেই কথা যে একেবারে সত্যি হয়ে যাবে তা ধারনার বাইরে ছিল সকলের।

সীমা খান অভিনয় করেছিলেন “দ্যা ফ্যাবুলাস লাইভস অফ বলিউড ওয়াইভস” নামক একটি সিরিজে। সেখানে দম্পতিকে আলাদাভাবে বসবাসকারী হিসাবে দেখানো হয়েছিল যার ফলে প্রশ্ন উঠেছিল অনেক। পরবর্তী সময়ে সীমা এই বিয়েকে “অপ্রচলিত” বলে অভিহিত করেছিলেন এবং বলেছিলেন,” আপনি যা দেখেছিলেন তা পরম সত্য। আমি শুধু বলতে চাই আপনি যা দেখেছিলেন সেটাই ঠিক”।

এই সিরিজে সীমা তাঁদের বিয়ের সাইডএফেক্ট সম্পর্কে আলোচনা করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, এটা ঠিক যে কখনও কখনও আপনি যখন এগিয়ে যেতে চান তখন আপনার আশেপাশের সম্পর্ক খারাপ হয়ে যায়। কিন্তু আমি এই সম্পর্ক খারাপ হওয়ার জন্য ক্ষমা চাইতে চাই না কারণ আমি খুশি এবং আমার বাচ্চারা খুশি। আমাদের বিয়ে গতানুগতিক বিয়ে নয়। আমরা একটা ইউনিট। আমাদের কাছে সন্তানরাই দিনের শেষে ভীষণভাবে গুরুত্বপূর্ণ। প্রসঙ্গত, দুই ভাইয়ের বিয়ের পরিণতি দেখে আর অদূর ভবিষ্যতে সালমান খান যে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চাইবেন না, তা বলাই বাহুল্য।