চাপ বাড়ল চীনের, ভারতের অনুরোধ রেখেই মিসাইল সিস্টেম আগে পাঠাচ্ছে রাশিয়া..

সীমান্ত বিবাদ নিয়ে ভারত ও চীনের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে ছিল তা যেন থামবার নাম নিচ্ছে না। একদিকে যেমন এই বিবাদের জেরে সকল ভারতবাসী চীনা পণ্য বয়কট করার ডাক দিয়েছেন অন্যদিকে ভারতের তরফ থেকে রাশিয়াকে অনুরোধ জানানো হয়েছিল সীমান্ত সুরক্ষার খাতিরে যেন রাশিয়ার সাথে ভারতের যে S-400 মিসাইল সিস্টেমের যে ডিলটি করা হয়েছিল যেটি ভারতে পৌছাবার কথা ছিল 2021 সালের ডিসেম্বর মাসে। সে মিসাইলটি যেন রাশিয়া তরফ থেকে ভারতে যত দ্রুত সম্ভব সাম্প্রতিক সীমান্ত পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই তাড়াতাড়ি পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়।

ভারতের তরফ থেকে রাশিয়াকে এমনটাই অনুরোধ করা হয়েছিল। এবার রাশিয়ার তরফ থেকে ভারতের সেই অনুরোধের সম্মান রেখে আধুনিক S-400 মিসাইলটিকে এই বছরেই ভারতের হাতে তুলে দিচ্ছে মস্কো। এই ইস্যুতে কথা বলতে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং রাশিয়ার ডিপুটি প্রাইম মিনিস্টার ইউরি বরিসোভ বৈঠকও করেন। আর পাশাপাশি সচিব পর্যায়ে বৈঠক করেন ভারতের প্রতিরক্ষা সচিব অজয় কুমার। তাছাড়া ভারতের এই মুহূর্তে চীন,পাকিস্তানের সাথে যে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে তাতে কড়া জবাব দিচ্ছে ভারত।

সেই পরিস্থিতি উপলব্ধি করেই রাশিয়ায় এরকম এক উদ্যোগ। প্রসঙ্গত ভারত সর্বাধিক পরিমাণ সামরিক অস্ত্র আমদানি করে থাকে রাশিয়ার কাছ থেকে। আর তাই আবারও রাশিয়ার কাছ থেকে উন্নততর এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম S-400 কিনতে চলেছে ভারত। আপনাদের সুবিধার্থে বলে রাখি এই এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমটি মাটি থেকে বায়ুতে আঘাত আনতে সক্ষম এবং এটি রাশিয়ার সবচেয়ে উন্নত সিস্টেম গুলির মধ্যে একটি বলে মনে করা হয়ে থাকে। ভারত রাশিয়ার সাথে 2018 সালে এই চুক্তিতে সম্মত হয় যেখানে ভারত পরিকল্পনা করে 3 টি মিসাইল সিস্টেম পাকিস্তান সীমান্তে এবং 2 টি মিসাইল সিস্টেম চীন সীমান্তে মোতায়েন করা হবে।

তাছাড়া গত ফেব্রুয়ারি মাসে ‘ফেডারেল সার্ভিস অফ মিলিটারি টেকনিক্যাল কর্পোরেশন অফ রাশিয়া’র ডেপুটি ডিরেক্টর জানিয়েছিলেন ভারত আগামী 2021 সালের মধ্যে তাদের প্রথম S-400 সিস্টেমটি হাতে পাবে।তবে বর্তমানে চীনের সাথে ভারতের যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তাতে ভারত এই অস্ত্রটিকে আগে পাঠানোর জন্য অনুরোধ জানিয়েছিল রাশিয়াকে। একইসঙ্গে ফাইটার জেট (Su-30 ও Mig-29) নৌসেনার জন্য যুদ্ধজাহাজ সাবমেরিন এবং T-90 যুদ্ধ ট্যাংকেও দ্রুত সরবরাহের দাবি জানানো হবে।এর দ্বারা এটাই স্পষ্ট ইঙ্গিত মিলেছে যে, যেকোনো পরিস্থিতির জন্য তিনটি বাহিনীকে তৈরি রাখতে চাইছে ভারত।

যদিও এক্ষেত্রে ভারতের সাথে রাশিয়ার যে অস্ত্র চুক্তি হয়েছিল তা নিয়ে প্রবল আপত্তি জানিয়েছিল চীন। তার পাশাপাশি রাশিয়াকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল চীনের তরফ থেকে যেখানে তারা জানিয়েছিল ভারতের হাতে যাতে কোনো রকম অস্ত্র তুলে না দেওয়া হয় রাশিয়ার তরফ থেকে‌।তবে রাশিয়ার তরফ থেকে চীনের এই সমস্ত দাবির মুখে ছাই ঘষে দিয়ে মিসাইল সিস্টেম ভারতের হাতে তুলে দেওয়া হবে।সূত্রের খবর ভারত-চীন সীমান্ত নিয়ে যে বিবাদে তৈরি হয়েছে তার মধ্যে রাশিয়া এই ডিফেন্স সিস্টেমটি ভারতকে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাকে একবারই সমর্থন করছে না চীন, আর একথা স্টেট মিডিয়া পিপলস ডেইলিতে প্রকাশিত ও হয়েছে।

Related Articles

Close