দেশের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে সন্তান সংখ্যা 2-এর বেশি আর না, দেশজুড়ে প্রচারে নামতে চলেছে আরএসএস…

দেশে জনসংখ্যা যে দিনের পর দিন বেড়ে যাচ্ছে তা নিয়ে চর্চা বহুদিন ধরে হয়ে আসছে। অনেকেই বলছেন এই অবস্থায় ভারতের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করা খুবই প্রয়োজন নইলে সামনে বড় বিপদের মুখে পড়তে হবে দেশকে। কেন্দ্রীয় সরকার বারবার এ নিয়ে সচেতনতা বাড়াবার চেষ্টা করেছে দেশজুড়ে। এবার আরএসএস এর প্রধান মোহন ভাগবত এই প্রসঙ্গে একমত রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

উত্তর প্রদেশের মোরাদাবাদে এক সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন ভারতের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ আইন আনাটা খুবই জরুরী। এক্ষেত্রে কারও যাতে সন্তান সংখ্যা দুজনের বেশি না হয় সে নিয়ে নিশ্চিত করতে হবে। একমাত্র এই ভাবে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে বলে তিনি জানিয়েছেন। যদিও আরএসএস প্রধানের সঙ্গে অনেকেই একমত নন বলে জানা গিয়েছে। চার দিনের জন্য মোরাদাবাদ গিয়েছেন আরএসএস এর প্রধান মোহন ভগবত।

সেখানে তিনি উত্তরাখণ্ড এবং পশ্চিম উত্তরপ্রদেশের মেরঠ ও ব্রজ এলাকার সংঘ পদাধিকারী ও কার্যকরদের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করেন। খবর পাওয়া গেছে এই বৈঠকে একাধিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয় এবং যাদের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল রাম মন্দির ইস্যু। জানা গিয়েছে এই বৈঠকে আরএসএস এর প্রধান মোহন ভাগবত বলেন, রাম মন্দির সঙ্ঘের প্রধান এজেন্ডা ছিল। খুব তাড়াতাড়ি ওখানে রাম মন্দির হতে চলেছে বলে জানান তিনি।

এরপর তিনি বলেন সংঘের পরবর্তী পদক্ষেপ হলো দেশে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করা অর্থাৎ সর্বাধিক দুই সন্তান গ্রহণের আইন চালু করা। সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুসারে জানা গিয়েছে যে, আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত জানিয়েছেন যে, কাশী অথবা মথুরা ইস্যু কোন দিনে আরএসএসের ইস্যু ছিল না। আগামী দিনে এই দুটি বিষয় নিয়ে আরএসএসের ইস্যু হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন এদিন তিনি। তবে তিনি এও সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যে আগামী দিনে দুই সন্তান আইনের জন্য সারা দেশজুড়ে সচেতনতা বাড়াবে আরএসএস। আমাদের তরফ থেকে চেষ্টা করা হবে যাতে এই আইন চালু হয়। এছাড়াও তিনি বলেন সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে পিছু হটার কোনো কারণ নেই।

আরও পড়ুন :