এশিয়ার ধনী ব্যক্তির শিরোপা হারানোর পর আবারও বড় ঝটকা খেলা মুকেশ আম্বানি, হারালো ১৯ মিলিয়ন ইউজার

গত সেপ্টেম্বর মাসে প্রায় ১৯ মিলিয়নের বেশি ওয়ারলেস সাবস্ক্রাইবার হারিয়েছে রিলায়েন্স জিও। এত সাবস্ক্রাইবার চলে যাবার পর বর্তমানে রিলায়েন্স জিওর মোট সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা নেমে এসেছে ৪২৪.৮৩ মিলিয়নের। সম্প্রতি আর্থিক বছরের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে মুকেশ আম্বানির নেতৃত্বাধীন টেলিকম সংস্থাগুলির থেকে কম অর্থ প্রদানকারী গ্রাহকদের ব্যাপকভাবে সরে যাবার প্রতিফলন এটি। এই কয়েক মাসে জিও গ্রাহক এ তুলনায় এয়ারটেল এর ক্ষেত্রে ওয়্যারলেস গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় ০.২৭ মিলিয়ন। ওই সংস্থার মোট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩৫৪.৪৬ মিলিয়ন। জিওর পাশাপাশি ভোডাফোন আইডিয়া এই কয়েক মাসে গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ১.০৭ মিলিয়ান যার ফলে বর্তমানে তাদের গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ২৬৯.৯৯ মিলিয়নে।

সোমবার টেলিকম রেগুলেটরি অথরিটি অফ ইন্ডিয়া তরফ থেকে যে তথ্য পাওয়া গিয়েছিল তাতে বোঝা গিয়েছিল জিওর ব্যবহারকারীর সংখ্যা অনেকটাই কমে যাবে। কিন্তু এত বেশি কমে যাবে তা বুঝতে পারা যায় নি। ভারতের মোবাইল ব্যবহারকারী সংখ্যা ২০.৭ মিলিয়ন থেকে কমে গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১.১৬ বিলিয়নে।

গত জুলাই এবং সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে জিও গ্রাহক সংখ্যা ১১ মিলিয়নেরও বেশি কমে গেছে। যদিও আর্থিক বর্ষের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে ব্যবহারকারী অর্থাৎ এপ্রিল-জুন সময়কালে তুলনায় গড় আয় তুলনামূলক ভাবে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩৮ টাকা থেকে ১৪৪ টাকায়।গত সেপ্টেম্বরে যেখানে এয়ারটেল ভোডা ফোনের গ্রাহক সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ৩০.৪ শতাংশ এবং ২৩.১৫ শতাংশ সেখানে জিওর সংখ্যা কমে গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৩৬.৪৩ শতাংশ।

গ্রামীণ ভারতে বিশেষ করে গ্রাহক হারিয়েছে রিলায়েন্স জিও। গত সেপ্টেম্বরে জিও গ্রামীণ ভারতে হারিয়েছে প্রায় ৬.৬ মিলিয়ন ব্যবহারকারী।পাশাপাশি এয়ারটেল এবং ভোডাফোন যথাক্রমে ০.৭৮ মিলিয়ন এবং ০.৭৪ মিলিয়ন গ্রামীণ ব্যবহারকারী হারিয়েছে। এর ফলে জিওর গ্রামীন মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৮৪.২৯ মিলিয়ানে এবং এয়ারটেল এবং ভোডাফোনের সংখ্যা যথাক্রমে নেমে দাঁড়িয়েছে ১৬৯.৯৯ মিলিয়ন ও ১৩৭.২১ মিলিয়নে।