FD-এর থেকেও বড়োসড়ো রিটার্ন দিচ্ছে এই পাঁচটি ব্যাঙ্ক, রইল সম্পূর্ণ তালিকা

কথায় বলে, আয় এর থেকে সঞ্চয় কার্য বেশি ভেবে চিন্তে করা প্রয়োজন ।  কারণ সামান্য পরিকল্পনা মাফিক লগ্নি করলে লাভ বেশি পাওয়া যায়। স্বল্প সঞ্চয়ের ক্ষেত্রে  এখনও ভারতে অসংখ্য মানুষের আস্থা ও ভরসা ফিক্সড ডিপোজিট এ  (Best FD Interest Rates)। সুদ কমলেও স্থায়ী ও নিশ্চিত আয়ের ক্ষেত্রে স্থায়ী আমানতে বিকল্প খুব কম আছে।

ব্যাঙ্ক এবং নন-ব্যাঙ্কিং ফিন্যান্সিয়াল কোম্পানিগুলি (NBFC)  স্থায়ী আমানত বা ফিক্সড ডিপোজিট করার সুযোগ দেয়।  সাধারণ মানুষ এখনও ব্যাঙ্কে টাকা রাখতেই বেশি পছন্দ করেন।  সম্প্রতি একাধিক ব্যাঙ্ক FD-তে সুদের হার পরিবর্তন করেছে। কোনও কোনও ব্যাঙ্কে  সুদ বেড়েছে। আবার কোথাও সুদের হার অনেকটাই কমে গেছে৷

সাধারণত বিভিন্ন ব্যাঙ্কে ন্যূনতম ৭ দিন থেকে সর্বোচ্চ ১০ বছর পর্যন্ত বিভিন্ন মেয়াদে ফিক্সড ডিপোজিট করার সুযোগ পাওয়া যায়। কত দিনের জন্য আমানত গচ্ছিত রাখা হচ্ছে, তার ওপর নির্ভর করে সুদের হার। বিভিন্ন ব্যাঙ্ক তাদের গ্রাহকদের FD-তে বিভিন্ন হারে সুদ দিয়ে থাকে। ১ বছর মেয়াদের FD-তে ব্যাঙ্ক গ্রাহকদের সবথেকে বেশি সুদ দিচ্ছে আবার ৫ বছর মেয়াদের FD-তে  সুদের হার কম হচ্ছে৷

বিশেষজ্ঞদের মতে, FD-তে লগ্নি করার আগে মেয়াদের পাশাপাশি সুদের হার নয়, সামগ্রিক বৃদ্ধি বা রিটার্নের উপরে নজর দেওয়া হয়। তাই লগ্নির আগে ত্রৈমাসিক না বার্ষিক ভিত্তিতে চক্রবৃদ্ধি সুদ পাওয়া যাবে সেটা দেখা খুব জরুরি। যেখানে ত্রৈমাসিক চক্রবৃদ্ধি ভিত্তিতে সুদ পাওয়া যায় সেখানে বেশি রিটার্ন। তাই টাকা লগ্নির তালিকায় এইগুলোকে অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত। এবার দেখে নিন, FD-তে গ্রাহকদের সবথেকে বেশি সুদ দিচ্ছে কোন ব্যাঙ্ক৷

মুকেশ আম্বানির উদ্যোগে এবার বিশ্বের বৃহত্তম চিড়িয়াখানা তৈরি করা হবে গুজরাটে

DCB ব্যাঙ্ক৫.৯৫৬.০৫-৬.৭০৬.৫০৬.৭৫৬.৭৫
RBL ব্যাঙ্ক৫.২৫-৫.৭৫৬.২৫৬.৫৬.২৫-৬.৭৫৬.২৫
ইন্ডাসইন্ড ব্যাঙ্ক৪.৭৫-৫.৭৫৬.৫০৬.৫০৬.৭৫৬.৭৫

ইয়েস ব্যাঙ্ক৫.৫০-৫.৭৫৬.২৫-৬.৫০৬.৫০৬.৭৫৬.৭৫
কারুর বৈশ্য ব্যাঙ্ক৪.৭৫-৫.০০৬.৫০৫.৫০৬.৬৫৫.৬৫-৬.০০

বাণিজ্যিক ব্যাঙ্কগুলি মাঝেমধ্যেই ফিক্সড ডিপোজিটে সুদের হার পরিবর্তন করে। ফলে যখন টাকা রাখতে চাইবেন তার আগে অবশ্যই দেখে নেবেন কোন ব্যাঙ্ক কতদিনের জন্য  কত সুদ দিচ্ছে৷