কর্মী ছাঁটাই করা কোনো সমস্যার সমাধান নয়, বিভিন্ন সংস্থার কর্মী ছাঁটাই এর পদ্ধতিকে তীব্র নিন্দা রতন টাটার

একদিকে করোনা মহামারী জন্য নাজেহাল অবস্থা সাধারণ মানুষের। তেমনি আবার অপর দিকে চাকরি হারানোর ভয়। এই দুটো মিলিয়ে মধ্যবিত্তদের যেন রাতের ঘুম উড়ে গেছে। তথ্য প্রযুক্তি থেকে গাড়ি শিল্প পর্যন্ত সবারই একই হাল এখন। খরচ কমাতে একই রাস্তা বেছে নিচ্ছে সংস্থাগুলি। যেটা হলো কর্মী ছাঁটাই করা।বিভিন্ন সংস্থার এই মনোভাবের তীব্র সমালোচনা করেছে টাটা গোষ্ঠীর কর্ণধার রতন টাটা। আপনাদের জানিয়ে দি রতন টাটা আগেই জানিয়েছিলেন যে কর্মী ছাঁটাই করা কোন সমস্যার সমাধান নয়।

তাই তিনি এই মহামারী সময়ে একটিও কর্মী ছাঁটাই করেননি। কারন তিনি জানেন কর্মী ছাঁটাই করলে তাদের রোজগার বন্ধ হয়ে যাবে। তাই এদিন তিনি স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছেন যে, ” কর্মী ছাঁটাই কোন সংস্থার সমস্যার সমাধান করতে পারেনা।” করোনা পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে বহু সংস্থা তাদের কর্মীদের বেতন কমিয়ে দিচ্ছে, এবং কর্মী ছাঁটাই করে দিচ্ছে। অপরদিকে টাটা সংস্থা এখনো পর্যন্ত একটিও কর্মী ছাঁটাই করেনি। তবে উচ্চপদস্থ কিছু কর্মচারীদের কুড়ি শতাংশ বেতন কমিয়ে দিয়েছে কিন্তু কোনো কর্মীকে বলপূর্বক ইস্তফা দিতে বাধ্য করেনি।

অথচ বাকি সমস্ত সংস্থাগুলির মতো টাটাও ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে এই পরিস্থিতিতে। এই পরিস্থিতিতে কর্মী ছাঁটাই কে ‘অসংবেদনশীলতার পরিচয়’ বলে মন্তব্য করেছেন রতন টাটা। রতন টাটা আরও জানিয়েছেন যে, ” ভারতের কিছু কিছু কর্পোরেট সংস্থার যেভাবে কর্মী ছাঁটাই এবং কর্মীদের বেতন কাটা শুরু করে দিয়েছে তা খুবই হঠকারী পদক্ষেপ। এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার পেছনে নেতৃত্ব স্থানে যারা রয়েছেন তাদের কোনো রকম সহানুভূতি নেই কর্মীদের ওপর।” রতন টাটা এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন যে,” যে সংস্থা তাদের কর্মীদের প্রতি সংবেদনশীল হতে পারবে না সেই সংস্থা বেশি দিন টিকতে পারে না।

হ্যাঁ এখন যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে তা খুবই উদ্বেগজনক। কিন্তু অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য সকলকে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করতে হবে, লড়াই করতে হবে। যেমন কর্মীদের ওয়াক ফ্রম হোম করতে হবে। কিন্তু কর্মী ছাঁটাই করা কোন সমস্যার সমাধান নয়। এটা তো আমরা সবাই জানি সব থেকে কঠিন সময়ে নতুন পথ বের হয়।” এর পাশাপাশি পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়েও তিনি বলেছেন। তিনি পরিযায়ী শ্রমিকদের যে দুর্দশা তা দেখে খুবই দুঃখিত। এ সম্পর্কে তিনি জানিয়েছেন যে,” এই মানুষগুলি একসময় আপনার সংস্থাকে উপরে তোলার জন্য কাজ করে গেছেন।


নিজের পুরো ক্যারিয়ার দিয়ে দিয়েছে আপনার সংস্থার পেছনে। আর আজকে তাদের মাথার ছাদ কেড়ে নিলেন। কর্মীদের প্রতি আচরণের এই আপনাদের নমুনা? এটাই কী তাহলে আপনাদের নৈতিকতা বোধ?” তার এই সাক্ষাৎকারের বক্তব্যগুলি নেটদুনিয়ায় ব্যাপকভাবে ভাইরাল হয়েছে। এবং দেশের আমজনতা এই মহান শিল্পপতিকে কুর্নিশ জানিয়েছেন তার এই মনোভাবের জন্য।

আরও পড়ুন :