অসুস্থ প্রাক্তন কর্মীকে দেখতে বাড়িতে হাজির রতন টাটা, মানবিক ‘বস’-এর কাহিনিতে মুগ্ধ গোটা নেটদুনিয়া

এখনো বহু সংস্থাই করোনা মহামারীর ধাক্কা সামলে উঠতে পারেনি। বিভিন্ন কোম্পানি কর্মী ছাঁটাই করছে। কিন্তু নতুন বছর শুরুর আগেই টাটা কনসালটেন্সি সার্ভিসেস এ খুশির হাওয়া। কারণ দুঃসময়ে কর্মীদের বেতন বৃদ্ধির কথা ঘোষণা করেছে টাটা গোষ্ঠীর মালিকানাধীন তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থাটি।

যদিও মালিক রতন টাটা বলেই এমনটা সম্ভব হয়েছে। বস হওয়া সত্ত্বেও তিনি কর্মীদের সব সময় সম্মান করেছেন। তাদের সুবিধা-অসুবিধা দেখভাল করেছেন। সম্প্রতি লিংকডইন থেকে রতন টাটা জানতে পারেন তার সংস্থারই এক পুরোনো কর্মী গুরুতর অসুস্থ। তাও আবার গত দু’বছর ধরে তিনি শয্যাশায়ী রয়েছেন।

এই খবর শুনে তিনি আর চুপ করে বসে থাকতে পারেনি। গাড়ি নিয়ে পৌঁছে গিয়েছেন সেই কর্মীর বাড়িতে। সঙ্গে ছিল না কোনো নিরাপত্তা রক্ষী। এমনকি ঘনিষ্ঠ মহল থেকে সংবাদমাধ্যম কাউকেই তিনি জানাননি তিনি তাঁর প্রাক্তন কর্মী কে দেখতে যাচ্ছেন৷ এদিকে মালিককে চোখের সামনে দেখতে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা ওই কর্মী।

 

চেক পেমেন্ট এর ক্ষেত্রে ‘পজিটিভ পে সিস্টেম’ চালু করেছে SBI, রয়েছে পাঁচ’টি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

দীর্ঘক্ষণ দুজনের মধ্যে কথাবার্তা হয়। শারীরিক অবস্থা থেকে চিকিৎসার খরচ, সন্তানদের পড়াশোনা সমস্ত দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন রতন টাটা৷ যোগেশ দাস নামে একজন ব্যক্তি রতন টাটার এই মানবিকতার কথা প্রকাশ্যে আনেন৷ তারপর থেকেই নেটিজেনরা মুগ্ধ রতন টাটার এই মানবিক আচরণে।

তাজ হোটেলের হামলায় আক্রান্ত ৮০ কর্মীর বাড়িতে ব্যক্তিগতভাবে হাজির হয়েছিলেন তিনি। তুলে নিয়েছিলেন যাবতীয় ব্যয়ভার। লকডাউনেও বেতন বাড়িয়েছেন। করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে 500 কোটির অর্থ সাহায্য নিয়ে এগিয়ে এসেছিলেন রতন টাটা। শুধু তাই নয় দেশী কুকুরের চিকিৎসা করে তাকে সুস্থ করে তার জন্য পরিবার চেয়ে আবেদন করেছিলেন টাটা গ্রুপের প্রাক্তন চেয়ারম্যান রতন টাটা৷ আসলে মানবিকতার অপর নাম রতন টাটা।