আজই দেখা মিলবে বিরল চন্দ্রগ্রহণের! একাধিক মহাজগতিক ঘটনার সাক্ষী থাকতে চলেছে ভারত সহ গোটা বিশ্ব..

2020 সালটা বিশ্বের প্রত্যেকটি মানুষকে অবাক করে দিচ্ছে একের পর এক ঘটনা দ্বারা। কখনো প্রকৃতির তরফ থেকে সৌন্দর্য দৃশ্য দেখার সুযোগ দিচ্ছে এই 2020 আবার কখনও কখনও রেগে গিয়ে তাণ্ডবলীলা দেখাচ্ছে এই প্রকৃতি। আমরা হয়তো অনেকেই শুনেছি এ বছরের প্রথম দিকে পৃথিবীর একেবারে গা ঘেষে চলে গেছে একটি উল্কাপিণ্ড। এর ফলে পৃথিবী একটুর জন্য বেঁচে গেছে। এরপর আবার জুন মাসে অর্থাৎ চলতি মাসে একটি মহাজাগতিক ঘটনা ঘটতে চলেছে। এই ঘটনার সাক্ষী থাকবে সারা বিশ্ব। গোটা ভারত এই দৃশ্য দেখতে পাবে।

আমেরিকা, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া সহ বিভিন্ন দেশগুলি এই দৃশ্য দেখতে পাবে। 5 ই জুন অর্থাৎ আজকে রাত এগারোটা থেকে শুরু হবে এই চন্দ্রগ্রহণ। এই চন্দ্রগ্রহণ চলবে 6 জুন রাত 2:38 মিনিট পর্যন্ত। এরমধ্যে আবার 6 জুন রাত 12:58 মিনিটে পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে। এই চন্দ্রগ্রহণ চলবে টানা 3 ঘন্টা 18 মিনিট ধরে। এই চন্দ্রগ্রহণের সময় চাঁদকে হালকা ফ্যাকাশে দেখতে লাগবে। এই বছরের এটি দ্বিতীয় চন্দ্রগ্রহণ হতে চলেছে। এ বছরের জানুয়ারি মাসের 10 তারিখে প্রথম চন্দ্রগ্রহণ হয়েছিল।

এরপর আজ অর্থাৎ 5 ই জুন রাত্রে শুরু হবে দ্বিতীয় চন্দ্রগ্রহণ। এরপরে এই বছরের আরেকবার চন্দ্রগ্রহণ হবে। অর্থাৎ এ বছরের তৃতীয় চন্দ্রগ্রহণ হতে চলেছে নভেম্বর মাসের 10 তারিখের। তবে এই চন্দ্রগ্রহণের সময় চাঁদ প্রতিদিন যেমন গোলাকার থাকে তেমনি থাকবে। যেহেতু চাঁদের আকৃতি কোন পরিবর্তন হবে না তাই স্বাভাবিক দিনের সঙ্গে চন্দ্রগ্রহণের তেমন একটা পার্থক্য থাকবে না শুধু মাত্র একটাই পার্থক্য থাকবে যে অন্যদিনের থেকে সেই দিনে চাঁদকে একটু ফ্যাকাশে দেখাবে। ঠিক রাত সাড়ে বারোটার সময় সম্পূর্ণরূপে চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে। এই সময়ে চন্দ্র এবং সূর্যের মাঝখানে অবস্থান করবে পৃথিবী।

পৃথিবীর ছায়া কিছুটা চাঁদের উপর পড়লে হয় অর্ধেক চন্দ্রগ্রহণ এবং পৃথিবীর ছায়া পুরোপুরি পড়লে সম্পূর্ণরূপে চন্দ্রগ্রহণ হয়। এগুলি ছাড়াও শুক্রবার সকালে আরো একটি আশ্চর্য ঘটনার সাক্ষী হতে চলেছে কলকাতাবাসীর। সকালের রোদ ওঠার সময় বাড়ির উঠোনে বাচ্চাদের কোন একটা কিছু দাঁড় করিয়ে রাখলে তার ছায়া পশ্চিম দিকে পড়বে। এরপর বেলা 11.36 এর সময় সেখানে ক্যামেরা নিয়ে গিয়ে যদি দেখেন তাহলে দেখা যাবে সেই জিনিস গুলোর আর কোন ছায়া পড়ছে না। এই ঘটনা কেন ঘটবে সেই সম্পর্কে এখনো কিছু উত্তর খুঁজে পাওয়া যায়নি। সুতরাং সবাই আজকে অপেক্ষা করে আছে কখন এই দৃশ্যের সাক্ষী হবে।

Related Articles

Close