ভয় বাড়তে চলেছে পাকিস্তানের! রাফালের সঙ্গে দুই প্রাণঘাতী অস্ত্র এসে গেল ভারতের হাতে…

যেমন কি আমরা জানি রাফালে চুক্তি গত চার বছর আগে সম্পন্ন হয়েছিল আর এই চুক্তি অনুযায়ী চার বছরের মাথায় প্রথম রাফাল যুদ্ধবিমান ভারত হাতে পেল। গত 2015 সালে ফ্রান্সের সংস্থা দাসো এভিয়েশনের সঙ্গে শুধুমাত্র 36 টি রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার চুক্তি সাধন করেছিলেন নরেন্দ্র মোদীর সরকার। আর সেই চুক্তি অনুযায়ী গতকালই প্রথম রাফাল বিমানটি হাতে পেল ভারত। এই রাফাল যুদ্ধবিমান ভারতের মাটিতে থেকেও পাকিস্তানের 100 কিলোমিটারের মধ্যে থাকা যেকোন অংশকে ধ্বংস করে দিতে সক্ষম।

তবে শুধু তাই নয় বায়ন্ড ভিজুয়াল রেঞ্জ (বিভিআর) অর্থাৎ না দেখা দেওয়া মিটিওর মিসাইল জেট কেউ রাফায়েল টক্কর দেবে। সাথে সাথে প্রতি ঘন্টায় 2130 কিলোমিটার গতিবেগে চলা রাফালের টানা ওড়ার ক্ষমতা 1500 কিলোমিটার। তবে এবার রাফায়েলের সাথে সাথে যে খবরটি ভারতের হয়ে বেরিয়ে আসছে সেটি শুনে চীনসহ, পাকিস্তানের রাতের ঘুম উড়ে যেতে পারে কারণ বেরিয়ে আসা খবরের সঙ্গে জানতে পারা যাচ্ছে যে, ভারতে রাফালের সঙ্গে হাতে আসতে চলেছে পৃথিবীর অন্যতম সেরা ক্ষেপণাস্ত্র মিটিওর এবং স্ক্যাল্প।

আর এই দুই ক্ষেপণাস্ত্র মজুদ থাকবে রাফালে। এই দুই ক্ষেপণাস্ত্র ভারতের বায়ুসেনার ক্ষমতাকে আরো অনেকগুণ বাড়িয়ে দেবে। এর পাশাপাশি শত্রুর আক্রমণ প্রতিহত করাতেও সাহায্য করবে এমনকি শত্রুপক্ষের মাটিতে গিয়ে হামলা চালাতে সাহায্য করবে এই ক্ষেপণাস্ত্র। যেমন কি আমরা জানি গত মঙ্গলবার ভারতের হাতে এসে গেছে রাফায়েল যুদ্ধবিমান।কালকে এই দিনটিতে শুধু দশেরাই ছিল না, ছিল এয়ারফোর্স ডে ও।

প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের মতে এবার রাফালে হাতে আসাতে সুখোই 30 এর সঙ্গে মিলে যেকোনো হামলার মোকাবিলা করতে সাহায্য করবে বিশেষ করে উত্তর সীমান্তে। তবে যে রাফাল যুদ্ধবিমান শুধু অত্যাধুনিক তাই নয় এর সঙ্গে এই বিমানটি ক্ষেপণাস্ত্র এবং বোমা বহন করতেও সক্ষম। সাথে সাথে এই যুদ্ধবিমান পৃথিবীর অন্যতম দুই সেরা ক্ষেপণাস্ত্র যাদের নাম মিটিওর এবং স্ক্যাল্প তাদের ও বহন করতে সক্ষম। রাফেল অস্ত্র প্যাকেজে এই দুটি অন্তর্ভুক্ত ও রয়েছে।আরো বলে রাখি মিটিওর হল বায়ু থেকে বায়ু ক্ষেপণাস্ত্র আর স্ক্যাল্প হল দীর্ঘ পরিসীমার ক্ষেপণাস্ত্র।

Related Articles

Close