আতঙ্কে সোশ্যালে হঠাৎ করে আর্তনাদ পাকিস্তানিদের, শিয়ালকোটের আকাশে যুদ্ধবিমান…

পুলওয়ামা জঙ্গি হামলার পর কার্যত আতঙ্কে রাতের ঘুম উড়ে গেছে পাকিস্তানের। সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে অতিরিক্ত সতর্ক রয়েছে ইসলামাবাদ। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী হুঁশিয়ারি দিয়েছেন যে, সেনাদের হাত খুলে দেওয়া হয়েছে। এবার আর আলোচনা হবে না, সঠিক সময়ে বদলা নেওয়া হবে। ভারত এটা এর আগে উরি হামলার পর সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করে পাকিস্তানকে দেখিয়ে দিয়েছিল। এমনটা খবর পাওয়া যাচ্ছে যে, পাক অধিকৃত কাশ্মীরে সমস্ত জঙ্গি খাঁটি গুলি খালি করে দিয়েছে আইএসআই। ঠিক এমন একটি পরিস্থিতিতে শিয়ালকোটে যুদ্ধের আতঙ্ক। বৃহস্পতিবার রাতে শিয়ালকোটের আকাশের উপর দিয়ে উড়ে গেছে একটি দ্রুতগামী যান।

 

 

 

আকাশ দিয়ে যাওয়ার সময় তীব্র শব্দ হয়। সব দেখছে যখন জানের গতি বেশি থাকে তখনই এই তীব্র শব্দ হয় বলে জানা গেছে। এমনি এক পরিস্থিতিতে ওই আওয়াজ শুনে শিয়ালকোটের বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। টুইটারে ভেসে উঠে, শিয়ালকোটে ভারতীয় বায়ুসেনা হামলা চালিয়েছে। আবার অনেকেই আশঙ্কা করছে, যুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। একের পর এক টুইটারে পোস্ট করা ঘিরে জল্পনা শুরু হয়। টুইট করে অনেক ভারতীয়রাও। অনেকের মনে প্রশ্ন জাগছে সত্যিই তাহলে ভারতের বিমান হামলা? বিশেষ করে ব্যাঙ্গালোর রাজস্থান এর যে ভাবে মহড়া পড়েছে ভারতীয় বায়ুসেনায়। আর এয়ার স্ট্রাইক মানেই তো শত্রুকে যুদ্ধের আমন্ত্রণ। এর আগে যখন ভারত সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করেছিল তখন কপ্টারে করে সীমান্তের ওপারে গিয়ে ছিলেন ভারতীয় জাওয়ানরা।

অভিযান শেষ করে ওই কপ্টারে করেই এপারে চলে আসেন। কিন্তু তা বলে বিমান হামলা? একজন দাবি করেন, শিয়াল কটায় ভারতের যুদ্ধবিমান কে গোলা ছুঁড়ে নামিয়ে দিয়েছে পাকিস্তানের বায়ু সেনারা। কয়েক ঘন্টা ধরে যত টুইট বাড়তে থাকে ততই জল্পনা সৃষ্টি হয়। পাকিস্তানিদের আতঙ্কে ঘুম উড়ে যায়। অন্যদিকে আবার দুই তরফেই সরকারের পক্ষ থেকে কোনও বিবৃতি নেই। পাকিস্তানিদের মনে প্রশ্ন, রাতেই কি অভিযান চালাতে নেমেছে বায়ুসেনারা? অপরদিকে ভারতকে সামরিক সহযোগিতা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ইজরায়েল। ফলে এই ব্যাপারটা সহজে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

পাকিস্তানের এক পত্রিকা দ্য নেশন জানায়, শিয়াল কোট এর উপর দিয়ে উড়ে গেছে পাকিস্তানের দুটি সুপারসনিক জেট। ফলে এটা স্পষ্ট হয়ে যায় যে, আতঙ্কের চোটেই গুজব রটে গিয়েছে। সবাই বলছে, নিজেদের সেনাদের বিমান দেখে ভয় পাচ্ছেন পাকিস্তানিরা। পুরো বিষয়টা থেকে একটা জিনিস স্পষ্ট হয়ে গেছে যে, ভারতের প্রত্যাঘাতের আতঙ্কে নিজেদের যুদ্ধবিমান দেখাও ভয় কাটছে পাকিস্তানিরা।