Categories
দেশ নতুন খবর বিশেষ ব্যবসা

দেশজুড়ে জ্বালানো হচ্ছে জিনপিং এর কুশ পুতুল! Oppo,Vivo সহ বিভিন্ন চীনা পণ্য জ্বালিয়ে শুরু হল চীনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ

চীনা পণ্য বয়কট করার জন্য ইতিমধ্যেই উঠে পড়ে লেগেছে ভারতবাসী। করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ার পেছনে একমাত্র হাত রয়েছে চীনের। শুধুমাত্র করোনা ভাইরাস নয় সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতেও চীন সংঘর্ষ করছে। এর আগে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য গোটা বিশ্ব চীনের বিরুদ্ধে একজোট হয়েছে। এমন কী বহু সংস্থা যারা চীনে ব্যবসা- বাণিজ্য করার জন্য ঘাঁটি গেড়ে বসে ছিল এতদিন ধরে, তারা সেখান থেকে উঠে অন্যত্র ব্যবসা করার জন্য পরিকল্পনা করছে।

এক কথায় ব্যান করতে চলেছে চীনি পন্য। সম্প্রতি বেশ কয়েকদিন ধরে সীমান্তবর্তী এলাকায় চীন ও ভারতের মধ্যে সংঘর্ষ হচ্ছে। দুই দেশের সেনা প্রধানের বৈঠক করে মিটিয়ে নেওয়ার পথে এগোলেও চীন তা মানছে না। আচমকাই সীমান্তবর্তী এলাকায় ভারতীয় সেনাদের ওপর হামলা করে দিচ্ছে চীনের সেনারা।আমরাও তো অনেকেই জানি গতকাল সীমান্তবর্তী এলাকায় ভারত-চীন সেনাদের সংঘর্ষে 20 জন ভারতীয় সেনা জাওয়ান শহীদ হন। কিন্তু ভারতের সেনারা চুপ করে বসে থাকেনি। এই সংঘর্ষে চীনের 43 জন সেনা নিহত হন।

শুধুমাত্র ভারতবাসী নয় চীনের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে সারা বিশ্ব। ভারতবাসীরা ইতিমধ্যেই চীনা পণ্য বয়কট করার জন্য পথে নেমেছে। মাঝে মাঝে খবর শোনা যাচ্ছে আমেদাবাদ আবার কোথাও বারাণসীতে চীনা পণ্য বয়কট করার জন্য সাধারন মানুষ গর্জে উঠেছে। কিন্তু তারা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই চীনা পণ্য বয়কট করার জন্য পথে নেমেছে। অনেক জায়গায় চীনের প্রধান জিন-পিং এর কুশপুতুল ও ছবি পোড়ানো হচ্ছে আবার কিছু কিছু জায়গায় পোড়ানো হচ্ছে চীনা পণ্যও।

আবার অনেক মানুষ প্ল্যাকার্ড হাতে রাস্তায় নেমেছেন। সেখানে লেখা রয়েছে, ‘ধোঁকাবাজ চীন মুর্দাবাদ’।কয়েকদিন আগে গুজরাটের আমেদাবাদের বাপু নগরে রাস্তায় এনে পড়ানো হলো Oppo, Vivo মতো চায়না ফোনগুলি। মুখে মাক্স পরে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই চীনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে নেমেছে ভারতীয়রা। বারানসীতেও ঠিক একই চিত্র দেখা গেল। সেখানে চীনের প্রধান জিন-পিং এর কুশপুতুল পোড়ানো হল তবে এসব কিছু করা হচ্ছে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই।