নতুন খবরবিশেষরাজ্যলাইফ স্টাইল

কোন কোন ফি নিতে পারবে না বেসরকারি স্কুলগুলি, সে বিষয়ক নির্দেশিকা জারি করল রাজ্য

দেশজুড়ে লকডাউন চলাকালীন একাধিক সমস্যার দেখা মিলেছিল যাদের মধ্যে অন্যতম একটি সমস্যা ছিল
বেসরকারি স্কুলগুলির ফি-কে নিয়ে। যেখানে একাধিক অভিভাবক অভিযোগ জানিয়েছিলেন এই মুহূর্তে লকডাউন চলাকালীন যেহেতু কাজকর্মের ওপর টান পড়েছে সেহেতু বেসরকারি স্কুলগুলি যেনো তাদের ফি এর বিষয়টিকে ভেবে দেখে। তবে এবার রাজ্যের তরফ থেকে এ বিষয়ক নির্দেশিকা জারি করে দেওয়া হয়েছে যেখানে জানানো হয়েছে টিউশন ফ্রি ছাড়া আর কোন ফ্রি স্কুল কর্তৃপক্ষ নিতে পারবে না।

আর এক্ষেত্রে যারা এই নির্দেশিকা মানবে না তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্কুল শিক্ষা দপ্তর। এই নির্দেশিকার মধ্যে স্পষ্ট ভাবে উল্লেখ করে দেওয়া হয়েছে এক্ষেত্রে পরিবহন, কম্পিউটার ল্যাব, লাইব্রেরির ফি নেওয়া যাবে না যেহেতু লকডাউন এর জেরে এই পরিষেবা গুলি আপাতত বন্ধ রয়েছে। আর অনলাইন ক্লাস থেকে বাদ দেওয়া যাবেনা পড়ুয়াদের কোন পড়ুয়ার যদি এক্ষেত্রে ফি দিতে দেরি হয় তার সাথেও যেন মানবিকতা সঙ্গে বিচার করা হয়, এক্ষেত্রে জরিমানা চাপানো চলবে না।

প্রসঙ্গত যেমনটা আমরা জানি প্রথম দফার লকডাউন শুরু হওয়ার পর থেকে কিন্তু বন্ধ রয়েছে দেশজুড়ে সমস্ত স্কুল কলেজ গুলি। যার ফলে স্কুল বন্ধ থাকায় তারা টিউশন ফি ছাড়া অন্য কিছু ফি দেবেন না এই দাবিতে শহরের বিভিন্ন বেসরকারি স্কুলের সামনে অনেকদিন ধরে অনেক অভিভাবক কে বিক্ষোভ করতে দেখা গিয়েছিল।শুধু তাই নয় এ ক্ষেত্রে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেও কিন্তু স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠি পাঠাতে দেখা গিয়েছিল তবে সেই চিঠির দ্বারা পুরোপুরি কাজ হয়নি।

যদিও কিছু কিছু স্কুল-কলেজ তাদের বর্ধিত ফি কমিয়ে ছিল কিন্তু এমন অনেক স্কুল রয়েছে যারা এখনো ফি কমানোর বিষয়ে কিছু সিদ্ধান্ত নেয়নি। তাছাড়া এমন অনেক স্কুলও রয়েছে যারা আবার জানিয়ে দিয়েছেন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে টাকা জমা না দিলে এক্ষেত্রে জরিমানা করা হবে বলে। রাজ্য সরকারের তরফ থেকে বারবার বেসরকারি স্কুল কর্তৃপক্ষকে মানবিক হবার বার্তা দেওয়া হলেও তারা একথা শোনেনি তবে এবার থেকে যদি কোনো স্কুলের তরফে এই নির্দেশিকা অমান্য করা হয় তাহলে সেই স্কুলগুলির বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন রাজ্যের স্কুল শিক্ষা দপ্তর।

Related Articles

Back to top button