চীনকে টক্কর দিতে নতুন চ্যালেঞ্জ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির, পাশে থাকছে একাধিক নামিদামি সংস্থা..

এই মুহূর্তে ভারত সরকার চীনের বিরুদ্ধে যে ডিজিটাল স্ট্রাইকের ডাক দিয়েছেন তা কোন প্রকার সার্জিক্যাল স্ট্রাইক এর তুলনায় কম নয়। গালওয়ান উপত্যকাতে ভারত চীনের মধ্যে যে সংঘর্ষ বাধে তার জেরে ভারত সরকার ইতিমধ্যেই চীনকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে শায়েস্তা করতে আপাতত 59 চীনা অ্যাপ্লিকেশন বাতিল করে দেওয়ার বার্তা দিয়েছেন। আর ভারত থেকে এই অ্যাপগুলি ব্যান করে দেবার পর থেকেই একাধিক প্রশ্ন উঠেছিল এই অ্যাপ গুলির বিকল্প নিয়ে।

তবে এবার সেই সব অ্যাপগুলি বিকল্প এবং দেশবাসীর সন্দেহ দূর করতে বিকল্প পথের সন্ধান দিলেন খুদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এর আগেই প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী দেশকে আত্মনির্ভর করে তোলার কথা বলেছিলেন। এবারও সেই সূত্রেই বাঁধলেন তথ্যপ্রযুক্তি জগতের অনন্ত সম্ভাবনাকে। এবার তিনি তথ্য প্রযুক্তির স্টার্টআপ সংস্থাগুলিকে অ্যাপ তৈরির চ্যালেঞ্জ দিলেন। দেশকে আত্মনির্ভর করে তোলার জন্য প্রধানমন্ত্রী যে স্লোগানটি বললেন সেটি হল চলুন এবার দেশ গড়ার জন্য কোডিং করা যাক।


আত্মনির্ভর ভারত চ্যালেঞ্জের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী এই দিন টেক স্টার্টআপ ও টেক কমিউনিটিকে উৎসাহিত করতে বৈদ্যুতিন ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্র অটল ইনোভেশন অধীনে নিয়ে আসার কথা জানালেন। এখানে প্রধানমন্ত্রী জানালেন আপাতত এই চ্যালেঞ্জটিকে দুটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে যেখানে প্রথম লক্ষ্য হল অ্যাপগুলির জোরদার বিপণন আর অন্যটি হলো নতুন অ্যাপ তৈরি করা। ইতিমধ্যে বাজারে যেসব অ্যাপগুলি রয়েছে সেগুলি বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বাছাই করা হবে বলেও জানান তিনি যেমন ই-লার্নিং, অফিসের নানা ব্যবহারিক উপযোগিতা, ওয়াক ফ্রম হোম, বিজনেস, গেমিং, সোশাল নেটওয়াকিং গুলির মধ্যে সবচেয়ে ভালো অ্যাপ গুলিকে বেছে নেওয়া হবে এই ট্র্যাক 1 এর মাধ্যমে।

আর অন্যদিকে ট্র্যাক 2 তে বাছাই করা হবে শ্রেষ্ঠ উদ্ভাবনকে। আর এই ভাবনা গুলোকে সাহায্য করার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সাহায্য করবে সরকার। বলে রাখি এই 59 টি অ্যাপ ব্যান করার ফলে ভারত কিন্তু পেছিয়ে পড়েনি বরং ভারত এক্ষেত্রে একধাপ এগিয়ে গেল আত্মনির্ভরতার পথে। আর কীভাবে ধাপে ধাপে এই পথে এগানো যেতে পারে সে বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী একটি ব্যাখ্যাও দিয়েছেন সেখানে তিনি বলেন পুরনো ভারতীয় যে খেলা গুলি রয়েছে সেগুলো কে ফিরিয়ে আনা যেতে পারে এই অ্যাপগুলির মাধ্যমে। দ্বিতীয়তঃ সঠিক বয়সে খেলা ও লেখাপড়ার সরঞ্জাম বিধানের অ্যাপ তৈরি করা যেতে পারে আমাদের দেশে।

তাছাড়া এমন কিছু অ্যাপ তৈরি করা যেতে পারে যেগুলি কাউন্সেলিং এর ক্ষেত্রে সহায়তা করবে। তাছাড়া প্রধানমন্ত্রীর এক্ষেত্রে জানিয়েছেন আত্মনির্ভর অ্যাপ চ্যালেনকে শক্তিশালী করে তুলতে সরকারের এক্ষেত্রে হাত ধরতে বেশ কয়েকটি নামিদামি সংস্থাও এই মুহূর্তে এগিয়ে এসেছে‌।

Related Articles

Back to top button