করোনা সংক্রমণ রুখতে দেশবাসীকে নবরাত্রিতে ন’টি টোটকার ঘোষণা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর….

করোনা ভাইরাসের জেরে ভারতে মৃত্যু-মিছিল অব্যাহত থাকল। এবার ভারতে এসে অসুস্থ হয়ে পড়া এক ইতালির নাগরিকের মৃত্যুর খবর প্রকাশ্যে এল রাজস্থান থেকে। যার ফলে ভারতে এখন এই করোনা ভাইরাসের জেরে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল 5 জন।আর এবার করোনা ভাইরাস এর জেরে ইতিমধ্যে ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে 195 জন। আর দিন দিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা।

গোটা বিশ্বে 151 টি দেশ এই করোনা ভাইরাস আক্রান্ত আর এই ভাইরাসের ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ইউরোপ। ইতালি সহ একাধিক দেশ যেখানে নরকীয় মৃত্যুমিছিল সাক্ষী রয়েছে এমন এক পরিস্থিতিতে ভারতেও এক ইতালি পর্যটক এর মৃত্যু হয়েছে এই দিন,প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে এই ইতালি পর্যটক রাজস্থান বেড়াতে এসেছিলেন এবং সেখানেই ধরা পড়ে তার এই রোগ।
69 বছর বয়সী এই রোগীর মৃত্যুতে আবারো একবার আতঙ্কের পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে দেশজুড়ে।

আর গতকাল জাতির উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী যে ভাষণ দিয়েছিলেন সেখানে তিনি জানিয়েছিলেন করোনাভাইরাস এর মোকাবেলা করতে আগামী রবিবার দিন জনতা কার্ফু লাগু করা হবে গোটা দেশজুড়ে। আর আগামী রবিবার দিন অর্থাৎ 22 মার্চ সকাল 7 টা থেকে রাত্রি 9টা পর্যন্ত সকল দেশবাসীকে এই জনতা কার্ফু পালনের অনুরোধ জানান তিনি। এর পাশাপাশি তিনি নবরাত্রির আগে করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে দেশবাসীর কাছে 9 টি বিষয় নিয়ে আবেদন করেন।

আর আজকে আমাদের আলোচ্য বিষয় থাকতে চলেছে সেই নিয়েই…
1) সবার প্রথমে প্রত্যেক দেশবাসীকে এই করোনা ভাইরাস নিয়ে সতর্কতা থাকার আবেদন জানান তিনি । আর তার সাথে আবেদন করেন আগামী কয়েক সপ্তাহ জরুরী কোন কাজ ছাড়া বাইরে যাতে না বেরোয় সকলে।

2) আর আগামী রবিবার দিন 22 শে মার্চ সকাল 7 টা থেকে রাত 9 টা পর্যন্ত জনতা কার্ফু পালন করার অনুরোধ জানান সকল দেশবাসীর কাছে।

3) এর পাশাপাশি 60 থেকে 65 বছরের উর্ধ্বে যে কোন ব্যক্তিকে ঘরের বাইরে না বেরোনোর পরামর্শ দেন তিনি।

4) আর যেসব মানুষেরা তাদের রুটিন চেকআপ করান তারা হাসপাতালে যাবেন এবং যারা শল্য চিকিৎসা করাচ্ছেন জরুরী যদি না হয়ে থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে তারিখ পিছিয়ে নেবার অনুরোধ জানান।

5) এর পাশাপাশি যেসব ডাক্তাররা ও নার্সেরা এই সেবায় নিয়োজিত রয়েছেন তাদেরকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানান।

6) অন্যদিকে উচ্চআয়ের ব্যক্তি এবং শিল্পপতিদের অনুরোধ করেন করোনা ভাইরাসের জেরে যদি কোন গাড়ি চালক, মালি, রাঁধুনিরা কাজে আসতে না পারেন তাহলে সে ক্ষেত্রে তাদের বেতন যাতে না কাটা হয়।

7) এক্ষেত্রে করোনাভাইরাস এর জেরে দেশের অর্থনীতিকে বাঁচাতে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ এর নেতৃত্বে একটি Covid-19 Economic Response Task Force গঠন করার।

8) এর পাশাপাশি এই ভাইরাসের জেরে ভীত না হওয়ার পরামর্শ দেন এবং সকলকে খাবার মজুদ করার কোন দরকার নেই সে কথা জানিয়ে দেন কারণ দেশে প্রয়োজনীয় খাদ্যশস্যের ঘাটতি নেই একথা তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন।

9) সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ যে বিষয়টি রয়েছে সেটি হল এই ভাইরাসের গুজব থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দেন সকল দেশবাসীকে।