জাতীয় শিক্ষা নীতির আওতায় বেশ কয়েকটি প্রকল্পের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির

শিক্ষক পর্ব ২০২১ জাতীয় শিক্ষানীতির অংশ রূপে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে চালু করলেন। আজ সাড়ে সকাল দশটায় অনুষ্ঠানটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি । এই সম্মেলনে অংশগ্রহণ করে প্রধানমন্ত্রী জনগণের উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন। তাঁর মূল বক্তব্য হিসেবে শিক্ষক দিবসের উদযাপনে কে চিহ্নিত করেন। উল্লেখ্য সেপ্টেম্বর থেকে 17 তারিখ পর্যন্ত দেশ জুড়ে পালিত হচ্ছে “শিক্ষা পরব”। যদিও এবছর করোনাকালীন পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে শিক্ষকদের সংবর্ধনা দেওয়ার জন্য সরাসরি তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হচ্ছেনা। কিন্তু তাহলেও ভার্চুয়ালি সবাইকে সংবর্ধনা দেওয়া হবে।

অনুষ্ঠান শুরুর আগেই বলা হয়েছিল যে বেশ কয়েকটি প্রকল্প এই শিক্ষা পর্বে অংশভুক্ত করা হবে তার মধ্যে একটি হলো শারীরিক প্রতিবন্ধীদের জন্য একটি স্পেশাল ডিকশনারি উদ্বোধন। অনুষ্ঠান শুরু হয় এই প্রকল্পটির দিয়ে ইন্ডিয়ান সাইন ল্যাঙ্গুয়েজ ফর ডিজেবিলিটি এন্ড স্কুল কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স অ্যান্ড অ্যাসেসমেন্ট ফ্রেমওয়ার্ক অফ সিবিএসই এই উদ্যোগের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। ভবিষ্যতে এই উদ্যোগ গুলি বাস্তবায়ন করা হবে । এবং পাঠক্রমের অংশগুলি অন্তর্ভুক্ত করা হবে বলে জানানো হচ্ছে।

অনুষ্ঠানটির এ প্রধানমন্ত্রী মূল বক্তব্য “সবকা প্রয়াস” একটি মৌলিক ধারণা । তাঁর কথায় ” সবকা সাথ, সবকা বিকাশ, সবকা বিশ্বাস”। করোনা কালীন পরিস্থিতিতে ছাত্র-শিক্ষক মিলে হাতে হাত মিলিয়ে যেভাবে শিক্ষাকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন সে বিষয়ে বক্তব্য দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের সম্পর্ক একটি পরিবারের মতো তা কখনো আনুষ্ঠানিক নয় ।

দেশের সামগ্রিক উন্নতিকরণের কথা ভেবেই প্রধানমন্ত্রী এই উদ্যোগ নিয়েছেন। এই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের মূল বিষয় গুলি হল:-

১. প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানের শুরুতেই জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত সকল শিক্ষকদের অভিনন্দন জানিয়েছেন। যদিও করোনাকালীন পরিস্থিতির জন্য সরাসরি কারো হাতেই উপহার তুলে দেয়া হয়নি। কিন্তু তাদের প্রশংসায় যথেষ্টই উচ্ছ্বসিত প্রধানমন্ত্রী।

২. এবছর প্রতিবন্ধীদের জন্য সাইন ল্যাঙ্গুয়েজ ডিকশনারি এবং টকিং বুক চালু করা হয়েছে। অভিধান টিতে রয়েছে ১০,০০০ টির বেশি শব্দ। ভবিষ্যতে এটি পাঠক্রমের অংশীভূত করা হবে।

৩. শিক্ষা খাতকে আরো প্রতিযোগিতামূলক এবং শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভবিষ্যতের প্রস্তুতি আরো মজবুত করার জন্য সিবিএসই, এসকিউএ স্কুল কোয়ালিটি আ্যসুরেন্স এবং অ্যাসেসমেন্ট ফর্ম ওয়ার্ক চালু করা হচ্ছে।
৪. প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আরো বলেছেন২০২০ বাস্তবায়নে সমাজকে আরো সম্পৃক্ত করা প্রয়োজন ।তাঁর কথামতো সমাজের শিক্ষক শিক্ষাবিদ এবং অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের অবদান মহান।
৫. প্রধানমন্ত্রী কথায় সরকারি স্কুলে শিক্ষার মান আরও উন্নত হওয়া উচিত । এক্ষেত্রে বেসরকারি খাতকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।
৬. ন্যাশনাল ডিজিটাল এডুকেশনাল আর্কিটেকচার কিভাবে শিক্ষাখাতে বৈষম্য দূর করবে সে কথা তিনি উল্লেখ করেছেন।

৭. NISHTHA 3.0 প্রশিক্ষণ প্রোগ্রাম চালু প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন এটি শিক্ষকদের নতুন প্রযুক্তি এবং সিস্টেম সম্পর্কে জানতে সাহায্য করবে।
৮. বিদ্যাঞ্জলি পোর্টাল চালু কথাও বলেছেন । এই পোর্টালে শিক্ষা স্বেচ্ছাসেবক ,দাতা এবং স্কুল উন্নয়নে সিএসআর সুবিধা পাবে।


অনুষ্ঠানটিতে প্রধানমন্ত্রীর সাথে কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন অন্যান্য শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী।বিষয়টি নিয়ে যথেষ্টই সচেতন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। উদ্যোগটি যাতে সম্পূর্ণভাবে সাফল্য লাভ করে সেদিকে যথেষ্ট নজর দেওয়া হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে।