প্রকাশ্যে চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট!হেলিকপ্টার সহ টাকা ভর্তি চারটি গাড়ি নিয়ে পলাতক আফগানিস্তানের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট

তালিবানদের আক্রমণের মুখে হার শিকার করে আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে আসরফ গনি দেশ ছেড়ে পালিয়ে গেছেন। পালিয়ে যাওয়ার সময় প্রচুর নগদ টাকা সঙ্গে নিয়ে গেছেন বলে সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে। কাবুলের রাশিয়ান দূতাবাস সোমবার (১৬ আগস্ট ) জানিয়েছেন, রবিবারই দেশ ছেড়ে পালিয়ে গেছেন আফগান প্রেসিডেন্ট। যাওয়ার সময় তিনি চারটি গাড়ি ও একটি হেলিকপ্টার ভর্তি টাকা নিয়ে গেছেন। তিনি এত বেশি টাকার ব্যাগ নিয়ে আসেন যে এই চারটি গাড়ি ও একটি হেলিকপ্টারে শেষ পর্যন্ত সব ব্যাগ তোলা সম্ভব হয়নি। বাধ্য হয়ে কিছু ব্যাগ রেখে গেছেন তিনি।

তবে তিনি এখন কোথায় রয়েছেন সেটা আপাতত জানা সম্ভব হয়নি। তবে পরবর্তী ক্ষেত্রে তিনি যে আমেরিকায় চলে যেতে পারেনি তার একটা সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে কারণ একসময় তিনি আমেরিকার নাগরিক ছিলেন। কিন্তু তার স্ত্রী এবং দুই সন্তান এখনো আমেরিকার নাগরিক। তাই মনে করা হচ্ছে যদি তিনি এখন ওমানে গিয়ে থাকেন তাহলে হয়তো খুব তাড়াতাড়ি সেখান থেকে আমেরিকায় চলে যাবেন প্রাক্তন আফগান প্রেসিডেন্ট।

এখন আফগান রাজধানী কাবুলে ঢুকে পড়েছে তালিবান, প্রেসিডেন্ট ভবনে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে, হ্যাঁ এটাই এখন এই দেশের বাস্তব চিত্র। ইতিমধ্যেই তালিবান ঘোষণা করেছে যে কাবুল মোটামুটি শান্ত এবং খুব তাড়াতাড়ি তারা নতুন সরকার গঠন করবে। বদল করা হবে দেশের পতাকা, মুছে যাবে আফগানিস্তানের নাম। তালিবান সূত্রের খবর, সেই দেশের নতুন নাম হতে চলেছে,’ ইসলামিক এমিরেট্ অফ আফগানিস্তান ‘। এই খবর সামনে আসতেই আতঙ্কে ভুগছেন গোটা আফগানিস্তান, কারণ তারা মনে করেছে আবারও তালিবান আগের মতোই ইসলামিক আইন তৈরি করবে আফগানিস্তানে।

এক ফেসবুক পোস্টে, আফগানিস্তানের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট বলেন তিনি রক্ত ক্ষয় থেকে দূরে থাকতে চান। আর সে কারণেই তিনি উপযুক্ত পদক্ষেপ নিচ্ছেন। আমেরিকার সেনা আফগানিস্তানের মাটি থেকে সরে যেতেই সৈন্য, যোদ্ধা নিয়ে তালিবানদের আস্ফালন শুরু হয়। আর তার ফলে কার্যত দেশের প্রশাসনকে হার স্বীকার করে নিজের জায়গা থেকে সরে যেতে বাধ্য করা হয়েছে।