যা বলেছিলেন মিলে গেছে অক্ষরে অক্ষরে, বাংলায় ভোটের কাজ শেষ করে অবসর ঘোষনা প্রশান্ত কিশোরের

গত চারমাস আগে প্রশান্ত কিশোরের কন্ঠে যে ভোটের রেজাল্টের কথা উঠে এসেছিল, সেই কথা মিলে গেল আজ অক্ষরে অক্ষরে। নবান্ন দখলের লড়াইয়ে ৭০- থেকে ৮০ কাঠ গোঁড়াতেই সংখ্যাটা আটকে রয়েছে বিজেপির। আর ঠিক এই মুহূর্তে ভোটকুশলীর কাজ থেকে অবসর নেওয়ার কথা ঘোষণা করলেন প্রশান্ত কিশোর।

 

প্রশান্ত কিশোরির ভোটের আসন সংখ্যার অনুমান মিলে যাওয়ায় নেটমাধ্যম যখন তাঁর প্রশংসায় ভরিয়ে দিচ্ছেন, সেই সময়ই ভোটকুশলীর কাজ থেকে অবসর নেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন প্রশান্ত কিশোর। সহকর্মীদের হাতে দায়িত্ব তুলে আইপ্যাক ছেড়ে অন্য কিছু করতে চান বলে জানিয়েছেন তিনি।

সংবাদ মাধ্যমের কাছে তিনি জানিয়েছেন যে‘‘দিদিকে সাহায্য করতে পেরে খুশি আমি। এই জয়ের মধ্যেও জানিয়ে রাখি যে আমি এই কাজ ছাড়ছি। আর এই কাজ করতে চাই না। অনেক হয়েছে। সহকর্মীদের হাতে আইপ্যাকের দায়িত্ব তুলে দিয়ে জীবনে অন্য কিছু করতে চাই আমি।’’

তবে ভোট পরামর্শদাতার ভূমিকা থেকে সরে দাঁড়ানোর পর তিনি কী করবেন তা তিনি খোলসা করে বলেননি। তবে কী আবার তিনি রাজনীতির মহলে ফিরে যাবেন? এর আগে প্রশান্ত কিশোরী নীতীশ কুমারের সংযুক্ত জনতা দলের (জেডিইউ) সহ সভাপতি পদে ছিলেন। কিন্তু বিহারে নীতীশ বিজেপি-র সাথে যুক্ত হবার পর দলের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করেন প্রশান্ত। এবার কী তাঁকে রাজনীতিতে দেখা যাবে? সে বিষয়ে তিনি কিছু বলেননি। তবে রাজনৈতিক দলগুলিকে একজোট হওয়ার ডাক দিয়েছেন।

এরসাথে তিনি নির্বাচন কমিশনের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, ‘‘কমিশন যদি নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করত, তাহলে বিজেপি যত টুকু ভোট পেয়েছে, তার ধারে কাছেও পৌঁছতে পারত না। বিজেপি-কে জেতাতে চেষ্টায় কোনও ত্রুটি রাখেনি তারা।’’