কেজরীকে সমস্ত সাহায্যের আশ্বাস স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর, প্রয়োজনে আরো মোতায়েন করা হবে পুলিশ জানিয়ে দিলেন অমিত শাহ…

একথা কারও জানতে বাকি নেই যে গত দু’দিনের সফরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারত এসেছেন আর তারই মধ্যে সোমবার দিন প্রায় সারাদিনই উত্তর পূর্ব দিল্লির একাধিক জায়গায় একের পর এক সংঘর্ষ লক্ষ্য করা যায় যেখানে এই সংঘর্ষের জেরে মৃতের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াল 7 জন, যার মধ্যে এক পুলিশ কনস্টেবলের ও নাম রয়েছে যার নাম রতনলাল। এখনো পর্যন্ত এই ঘটনার দরুন আহত হয়েছে 160 জন, আর এদের মধ্যে অধিকাংশই পুলিশকর্মী।

তবে এরকম এক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জেরে মোতায়েন করা হল 35 কোম্পানির আধাসেনা, আর এই বিষয়ে বিশেষ বৈঠকও বসানো হয়েছে এই মুহূর্তে অমিত শাহ, দিল্লির উপ-রাজ্যপাল ও অরবিন্দ কেজরীবাল। যেমনটা জানতে পারা যাচ্ছে দিল্লির জাফরাবাদে CAA এর বিরোধী আন্দোলনকে কেন্দ্র করে হিংসা ছড়িয়ে পড়েছে জাফরাবাদ মেট্রো স্টেশন থেকে শুরু করে মৌজপুর পর্যন্ত। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা যায় এদিন CAA বিরোধী ও সমর্থনকারীদের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায় যার দরুনই সোমবার সারা রাত দফায় দফায় চলে সংঘর্ষ বিভিন্ন এলাকায়।

সেখানে থাকা থানা থেকে মাত্র কয়েক মিটার দূরে গোকুলপুর টায়ার মার্কেট , আর হামলাকারীরা এখানে গোটা টায়ার মার্কেটটা জ্বালিয়ে দেয়। এমন কী মঙ্গলবার সকালেও সেই মার্কেট থেকে ধোঁয়া উড়তে দেখা গিয়েছে। আর সেই মার্কেটে থাকা একাধিক যানবাহনকে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে আবার কোনো কোনো যানবাহন কে আবার উল্টে দেয়া হয়েছে, সাথে সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা গাড়ির কাচগুলি কে পর্যন্ত ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে। তবে সোমবার দিনে গোলমালের মধ্যে প্রকাশ্যে গুলি চালাতে দেখা গিয়েছিল এক ব্যক্তিকে।

যার পরনে ছিল একটি লাল রঙের টি-শার্ট।আবার সূত্র অনুযায়ী জানা যাচ্ছে এই ব্যক্তিটির গুলিতে নাকি নিহত হয়েছে দিল্লি পুলিশের কনস্টেবল রতনলাল, আপাতত শাহরুখ নামের সেই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।এরকম এক পরিস্থিতিতে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সবাইকে শান্ত থাকার বার্তা দিয়েছেন কেজরীবাল।আর আজ মঙ্গলবার দিন সকালে এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ দিল্লি উচ্চপদস্থ কর্মীদের সাথে একটি বৈঠক করেন এই বিষয়ে, আর তারপর তিনি জানান পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রয়োজন হলে সেখানে আরও পুলিশ পাঠানো হবে।

আর এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কেজরিবালও ফলে বৈঠক সেরে বাইরে বেরিয়ে আসার সময় যখন তাকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হয় তখন তিনি জানান হিংসা দমনে কী তিনি সেনা ডাকবেন, তার উত্তরে তিনি বলেন একটা সময়ে এটার প্রয়োজন ছিল,কিন্তু এখন পুলিশ পদক্ষেপ নিচ্ছে বৈঠকে আমাদের বলা হয়েছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে উপযুক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হবে।