সাপ কুমির নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ভয় দেখানো পাকিস্তানি গায়িকা এখন জেলযাত্রার মুখে

বিপদের মুখে পাকিস্তানের গায়িকা রাবি পীরজাদা। কারণটি শুনলে আপনি হয়তো অবাক হয়ে যাবেন। তিনি নাকি সাপ ও কুমির নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদীকে হুমকি দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। স্বাভাবিক ভাবেই কাশ্মীর থেকে 370 ধারা অপসারণ করার পর ভারত সরকারের উপর চটে রয়েছে ইসলামাবাদ।এমনকি পাক নাগরিক ও ভারতের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছে।

এর থেকেও একধাপ এগিয়ে পাক গায়িকা রাবি পীরজাদা সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও আপলোড করেন। ওই ভিডিওটিতে কয়েকটি সাপ দেখিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে হুমকি দেওয়ার চেষ্টা করেন। গত 2 সেপ্টেম্বর টুইট করে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন এই পাক গায়িকা। সাপ এবং কুমির নিয়ে ওই ভিডিওটিতে তাকে বলতে দেখা যায়, ভারতের সীমান্তে গিয়ে এই সাপ ও কুমির গুলোকে তিনি ছেড়ে দিয়ে চলে আসবেন।

আমরা সবাই জানি বর্তমান দিনের সোশ্যাল মিডিয়া কতটা উন্নত হয়ে গেছে তাই এই ভিডিওটি ভাইরাল হতে বেশি সময় লাগেনি। এবং তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে এক পাক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে। নিয়ম লঙ্ঘন করে ওই পাক গায়িকা একটি কুমির ও একটি সাপ নিজের কাছে রেখে দিয়েছেন। পাকিস্তানের বন্য সংরক্ষণ আইন অনুসারে বাড়িতে সাপ ও কুমির পোষা নিষিদ্ধ।

তাদের আইন অনুসারে সাপ ও কুমির পোষার লাইসেন্স দেওয়া হয় না কোন ব্যক্তিকে। তাই জন্য সংরক্ষণ আইন লঙ্ঘণ করেছেন এই পাক গায়িকা। তিনি দোষী সাব্যস্ত হলে 2 বছরের জেল হতে পারে। আমরা সবাই দেখে আসছি যেদিন থেকে কাশ্মীর থেকে 370 ধারা তুলে নেওয়া হয়েছে সেদিন থেকে আন্তর্জাতিক মহলে পাকিস্তান নানাভাবে ভারতকে বিপাকে ফেলার চেষ্টা করছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত যতবারই পাকিস্তান চেষ্টা করছে ততোবারেই তারা অপমানিত হচ্ছে।

এমনকি পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ মন্ত্রী এজাজ আহমেদও এই বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন যে, কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তান আন্তর্জাতিক মহলে জোর ধাক্কা খেয়েছে।এর জন্য দায়ী একমাত্র তাদের ভাবমূর্তি। পাকিস্তানকে একটি দায়িত্বপূর্ণ দেশের চোখে দেখা হয় না। পাক গায়িকা রাবি অনেক টেলিভিশন অনুষ্ঠানও করেছেন। 2013 সালে রবীর নাম আলোচনার মধ্যে আসে যখন তিনি বলিউড ইন্ডাস্ট্রি এবাং বলিউড তারকা সালমান খানের বিরোধিতা করেছিলেন।এছাড়াও কাশ্মীর বিভাগ নিয়ে একটি গান করার দরুন তিনি আলোচনার বিষয় হয়ে রয়েছেন।