মোদির ৫ বছরের মেয়াদকালে নেওয়া ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তের ফলেই, এক ঝটকায় 8500000000 টাকা এলো।

নতুন দিল্লি:-বিগত কিছু দশক থেকেই ভারতে কেবলমাত্র হাজার কোটি টাকার লোকসান অথবা কোটি কোটি টাকার ঘোটালার খবরই দেখতে পাওয়া যায় কিন্তু মোদি সরকারের শাসনাধীনে  ভারত অর্থনৈতিক দিক থেকে উন্নতির শিখরে উঠেছে। সূত্রের খবর অনুসারে ,শত্রু শহর গুলির বিক্রি অর্থাৎ কেন্দ্রীয় সার্বজনীন ক্ষেত্র উপক্রম (CPSE) তে পুনঃ বিক্রির জন্য সরকার  এই বছরে ১১,৩০০ কোটি টাকারও অধিক লাভ করেছে। এটি পাওয়াই  এই  বর্ষে সরকারের ৮৫ কোটি টাকার  সাহায্য হয়েছে। তবে আপনাদের জানিয়ে দিই, এর আগে বিগত কোনো বর্ষতেই এত টাকার লাভ এর আগে কখনো হয়নি।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মন্ডল ২০১৮ তে নিবেশ এবং লোকসম্পত্তি প্রবন্ধন বিভাগ(দিপম)কে কোম্পানিদের শত্রু শেয়ার বিক্রি করার অনুমতি দেওয়া হয়। এরপর শত্রু শেয়ার কে বিক্রি করে সরকার  ৭০০ কোটি টাকার লাভ করে,  এছাড়াও সরকার কেন্দ্রীয় সার্বজনীক উপক্রমে শহর গুলিকে পুনঃ কেনায় ১০,৬০০ টাকার অধিক সরকার লাভ করেছে। বিগত বছরের তুলনায় এবছর দ্বিগুণ লাভ:-বিগত বছর ২০১৭- ২০১৮ এর তুলনায় এবছর সরকার অধিক লাভ করেছে। চালু বর্ষ  অর্থাৎ ২০১৯ এর জন্য  সরকার বাজেটের মধ্যে  ৮০ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ এর লক্ষ্য রেখেছিল। এর আগের বিগত বর্ষ ২০১৭- ২০১৮ তে  সরকার ৭২,৫০০ কোটি টাকার লক্ষের তুলনায় বিনিয়োগের থেকে এক লাখ কোটি টাকার ও অধিক জোগাড় করতে পেরেছিল। চালু বর্ষতে এক্সচেঞ্জ ট্রেডেড ফান্ড(ETF)থেকে সর্বাধিক ৪৫,৭২৯ কোটি টাকার জোগাড় করতে পেরেছিল। এরপর সরকারি পাওয়ার ফাইন্যান্স করপোরেশনে আরিসি দ্বারা  সরকার ৫২.৬৩ শতাংশ ভাগ কেনাই সরকার ১৪,৫০০ কোটি টাকা লাভ করেছে।

৫টি কোম্পানি দ্বারা পাওয়া গেল১,৯২৯কোটি টাকা:- সরকার পাঁচটি কম্পানির এমএসটিসি ,আর আই টি এস, ইরকন ,গার্ডেন রিচ  শিপবিল্ডার্স এবং মিধানি আইপিও থেকে ১,৯২৯ কোটি টাকা পেল এছাড়াও এগুলি পুনঃ কেনাই  সরকার ১০,৬০০ কোটি টাকা পেল।আপনাদের জানিয়ে দিই,এর পরের বছরের জন্য সরকার ৯০ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগের লক্ষ্য রেখেছে।
শত্রু সম্পত্তিটি আসলে কি?
যে সকল জনগণেররা এখন ভারতের সদস্য নয় অর্থাৎ  যে সকল জনগনেরা ভারত ছেড়ে  চীন অথবা পাকিস্তানে চলে গেছে, এদের ছেড়ে যাওয়া সম্পত্তি গুলিকে শত্রু সম্পত্তি বলা হয়।

Related Articles

Open

Close