আবারো একটি রাজ্যে বাড়ানো হল Lockdown এর সময়সীমা, আগামী পয়লা মে পর্যন্ত জারি থাকবে Lockdown

গতকালই ওড়িশাতে বাড়ানো হয়েছে লকডাউনের সময়সীমা সেই রাজ্যে যে lockdown এর সময়সীমা ছিল সেটাকে বাড়িয়ে তারা 30 শে এপ্রিল পর্যন্ত করেছে। আর এবার যে খবরটি বেরিয়ে আসছে সেখানে জানা যাচ্ছে আরো এক রাজ্যে করোনা রুখতে এবার বাড়ানো হল সেই লকডাউন এর সময়সীমাকে। দেশজুড়ে এরকম এক কঠিন পরিস্থিতিতে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হল পাঞ্জাব সরকারের তরফ থেকে আর এই সিদ্ধান্তটি নেওয়া হয়েছে আজ শুক্রবার দিন।

প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে এই বিষয় নিয়ে পাঞ্জাবের মন্ত্রিসভার এক বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছিল।ইতিমধ্যে ওই রাজ্যে কারোনা আক্রান্তের সংখ্যা পেরিয়ে গেছে 100 জন। আর এবার সেই সংক্রমণের সংখ্যাকে কমানোর জন্যই এই লকডাউনের যে সময়সীমা সেটিকে বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এই দিন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং এর নেতৃত্বে একটি বৈঠক গঠন করা হয় যেখানে এই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে আলোচনা করা হয়। এই বৈঠক শুরু হবার আগেই পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং জানান এবার আমরা লকডাউন এর যে সময় সীমাটি রয়েছে সেটিকে বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে বৈঠকে গুরুত্ব দিয়ে ভাবছি। তবে এই বিষয়ে যে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে সেটি বৈঠকের পরই নেওয়া হবে এমনটাই তিনি জানিয়েছিলেন সংবাদমাধ্যমকে। শুধু তাই নয় এর পাশাপাশি তিনি প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলবেন দেশের জন্য যে 15 হাজার কোটি টাকা প্যাকেজের ঘোষণা করা হয়েছে সে বিষয়ে, তিনি জানিয়েছিলেন এই পরিমাণ অর্থ যথেষ্ট হবে না এই করোনা মোকাবেলায়।

আর এই বিষয়ে তিনি শনিবার দিন প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলবেন এমনটা তিনি জানিয়েছেন।প্রসঙ্গত বলে রাখি সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সাথে আগামী শনিবার দিন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কথাবার্তা হবে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির, আর তাতেই বিভিন্ন রাজ্য জুড়ে যে লকডাউনের যে সময় সীমা রয়েছে সেটি নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে আগেই জানিয়েছেন মোদি।আর গতকাল বৃহস্পতিবার দিন উড়িষ্যার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক জানিয়েছিলেন রাজাদের রাজ্য সরকার যে লকডাউনের সময়সীমা রয়েছে সেটিকে আগামী 30 শে এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে এই করোনা সংক্রমণকে রুখতে।অন্যদিকে গত বুধবার দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও একথা ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে দেশজুড়ে আগামী 14 এপ্রিল শেষ হচ্ছেনা লকডাউন। তাই তিনি এই বিষয়টিকে সর্বদলীয় বৈঠকের সঙ্গে আলোচনা করে জানাতে চাইবেন একথাও জানিয়েছিলেন দেশে জরুরি অবস্থা তৈরি হয়েছে তার জন্য আরও কড়া ব্যবস্থা নিতে হবে সরকারকে।