শেষ পর্যন্ত ভারতের কাছে হাত পাতলো পাকিস্তান! করোনা রুখতে মোদির শরণাপন্ন ইমরানের সরকার

একটি ভাইরাসের জন্য সারা বিশ্বের পরিস্থিতি এখন খুবই খারাপ। বিশ্বের তাবড় তাবড় দেশগুলিকে কার্যত হিমশিম খায়িয়ে দিয়েছে এই ক্ষুদ্র ভাইরাসটি। চীন, ইটালি, আমেরিকার মতন শক্তিশালী দেশগুলো কুল কিনারা পাচ্ছে না এই করোনা ভাইরাসের প্রভাবে। করোনা ভাইরাস কে ঠেকানোর জন্য তারা যা যা পদক্ষেপ নিচ্ছে সমস্ত কিছুকে হার মানিয়ে দিচ্ছে এই ভাইরাস। তাই বলা যেতে পারে এই করোনা ভাইরাসের প্রকোপে একপ্রকার জর্জরিত রয়েছে গোটা বিশ্ব সে ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম যাচ্ছে না পাকিস্তানও।

দিনদিন পাকিস্তানও করোনা সংক্রমণ লাগামহীন আকার ধারণ করছে আর প্রাণঘাতী হয়ে উঠছে এই করোনা ভাইরাস পাকিস্তানেও। তাই এরকম এক অবস্থায় এবার পাকিস্তান কাশ্মীর দ্বন্দ্ব ভুলে গিয়ে ভারতের কাছে সাহায্যের জন্য হাত পাততে বাধ্য হয়েছে। বলে রাখি পাকিস্তান ভারতের কাছে বাধ্য হয়েছে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন চাইতে, যেভাবে পাকিস্তানেই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ জোরদার ছড়িয়ে পড়েছে তার জেরে পাকিস্তান সরকারের তরফ থেকে এবার ভারতের কাছে হাইড্রোক্লোরিক চাওয়া হয়েছে।

যেমনটা আমরা জানি এই মুহূর্তে ভারত আমেরিকা সহ পৃথিবীর একাধিক দেশকে এই করোনা মোকাবেলা সাহায্য করতে হাইড্রক্সি ক্লোরোকুইন পাঠিয়েছে, আর এতে অনেক সুফল মিলেছে সেসব দেশগুলিতে। তাই সর্বশেষে ভারতের চিরশত্রু পাকিস্তান বাধ্য হয়েছে এবার ভারতের কাছে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন চাইতে।এর কিছুদিন আগে ইমরান খানের সরকার ঘোষণা করেছিলেন পাকিস্তানের যাই হয়ে যাক তিনি তাদের দেশজুড়ে লকডাউনের ঘোষণা করবেন না। সার্কের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে শুধু অনুপস্থিত ছিলেন ইমরান।

সেই বৈঠকে তিনি না গিয়ে বরং তার জায়গায় বসেই ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে, পাশাপাশি করোনা মহামারী নিয়ে আপৎকালীন পরিস্থিতিতে পাকিস্তান সার্কের বৈঠকে কাশ্মীর প্রসঙ্গ তুলে সকলকে চমকে দেয়। যেখানে গোটা বিশ্বজুড়ে কিভাবে এই করোনাভাইরাস এর মোকাবেলা করা যাবে সেই নিয়ে চিন্তাভাবনা চলছিল তখন ও পাকিস্তান সরকারের তরফ থেকে বারবার কাশ্মীরের প্রসঙ্গ তোলা হচ্ছিল।তবে এবার তাদের দেশের পরিস্থিতি খারাপের দিকে এগোচ্ছে দেখে এবার বাধ্য হয়েছে তারা এরকম এক পদক্ষেপ নিতে। বলে রাখি এই মুহূর্তে পাকিস্থানে আক্রান্তের সংখ্যা পেরিয়ে গেছে ছয় হাজারেরও বেশি আর এখনও পর্যন্ত এই ভাইরাসের দরুন পাকিস্তানের মারা গিয়েছে 100 জন।


আর এই করোনা আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছে পাকিস্তানের সেনা উচ্চপদস্থের এক আধিকারিক শুধু তাই নয় এরকম এক পরিস্থিতিতে পাকিস্তান থেকে করোনাভাইরাস আরো বেশি ছড়িয়ে পড়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলিতে।পাকিস্তানের এই করোনা আক্রান্তদের পাঠানো হচ্ছে পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরে ও গিলগিট বাল্টিস্তানে।প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে পাঞ্জাব ও সিন্ধ প্রদেশে আক্রান্ত হওয়া রোগীদের পাঠানো হচ্ছে পিওকে ও গিলগিটে।যেখানে তাদের জন্য তৈরি করে রাখা হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। তবে এতে এক প্রকার চটে গিয়েছে পাকিস্তানের কাশ্মীর ও গিলগিটের বাসিন্দারা।

তাদের দাবি তাদেরকে এইভাবে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। এখনো পর্যন্ত এই করোনা ভাইরাস মোকাবেলাতে ভারত 34 টি দেশের পাশে দাঁড়িয়েছে। আর এই মুহূর্তে ম্যালেরিয়া প্রতিষেধক ওষুধ হাইড্রক্সি ক্লোরোকুইন এই ওষুধটি অনেকটা করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসাতে সুুুফল মিলছে, তাই গোটা বিশ্বে এই ওষুধের চাহিদা বেড়েছে অনেকগুণ। তাই এই মুহূর্তে গোটা বিশ্বে মানুষের প্রাণ বাঁচাতেই এই ওষুধের রপ্তানির ওপর সমস্ত রকম নিষেধাজ্ঞা তুলে দেওয়া হয়েছে ভারতের তরফ থেকে,এর আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে শুধুমাত্র হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন সরবরাহ করেছিল ভারত তবে পরবর্তীতে আরো 34 টি দেশের পাশে দাঁড়িয়েছে ভারত।

More Stories
স্বাস্থ্য ভালো রাখতে হলে কতটা হাঁটবেন? কোন বয়সে কতটা হাঁটার প্রয়োজন রয়েছে…