“পাকিস্থান কুলভূষণকে ফাঁসি দিলে, উত্তরপ্রদেশের জেলে থাকা ১০ পাকিস্থানিকে ঝুলিয়ে দেব ” – বললেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

সমস্ত দেশের উচ্চ পদাধিকারী রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে আগ্রাসী মনোভাব থাকা খুবই দরকার নইলে দেশে শত্রু পরিমাণ দিনে দিনে বেড়েই যাবে। আমরা হয়তো অনেকেই জানি ভারতীয় নাগরিক কুলভূষণ যাদব কে পাকিস্তান অনেকদিন ধরে জেলে বন্দি করে রেখেছে।আর এই নিয়ে মন্তব্য করলেন যোগী আদিত্যনাথ। যেমন ইজরায়েলের নাগরিকরা আতঙ্কবাদী দ্বারা আহত হলে ইসরায়েলের নাগরিকরা তাদের অবস্থা খারাপ করে দেয়। এর একমাত্র কারণ হল ইসরাইলে অনেক ইচ্ছা শক্তি সম্পন্ন আগ্রাসী মনোভাবের নেতা রয়েছে।তবে এটা নিঃসন্দেহে বলা যায় ভারতের এই রকম ইচ্ছা শক্তি সম্পন্ন নেতার অভাব স্বাধীনতার পর থেকেই রয়েছে।

তবে বর্তমানে ভারতে আবার শক্তিশালী সরকার দেখা যাচ্ছে যে সরকার শত্রুদের যোগ্য জবাব দিতে পারবে। যোগী আদিত্যনাথ মন্তব্য করেছেন, ‘পাকিস্তানের জেলে যদি কুলভূষণ কে ফাঁসি দেওয়া হয় তাহলে আমাদেরও উত্তরপ্রদেশের জেলে বন্দী থাকা 10 জন পাকিস্তানি কে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেওয়া হবে।’ যোগী আদিত্যনাথ কে এই মন্তব্যকে ঘিরে পাকিস্তানের এখন তোলপাড় শুরু হয়ে গেছে। পাকিস্তানি মিডিয়া আবার বলছেন ভারতীয় নেতাদের মানবিকতা দেখিয়ে মন্তব্য করা উচিত।

অবশ্য যোগী আদিত্যনাথ মিডিয়ার এই সমস্ত কথাকে পাত্তা দেননি। উত্তর প্রদেশের পুলিশ দ্বারা যখন গুন্ডাদের লাগাতার এনকাউন্টার করা হয় তখনও কিছু দালাল মিডিয়া এনার বিরুদ্ধে মন্তব্য করেছেন। এমন কী মানবাধিকার কমিশন প্রভার যোগী আদিত্যনাথের সরকারকে নোটিশ পার্টি ছিল অবশ্য তিনি এই সবে কোন মাথায় ঘামান নি।