একেই বলে 56 ইঞ্চির পাওয়ার, দুদিন আগে পরমাণুর হুমকি দেওয়া পাকিস্তান আজ নিজেদের বাঁচাতে ভারতের হাতে পায়ে ধরছে।

পুলওয়ামা জঙ্গি হামলা পর থেকে পাকিস্তানের উপর ক্রমশ চাপ বেড়ে চলেছে। আরে ইতিমধ্যেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জানিয়ে দিয়েছেন 40 জন সেনা জওয়ান এর মৃত্যুর পর ভারতের ক্ষোভ স্বাভাবিক পাকিস্তানের প্রতি। আর একইসঙ্গে রাষ্ট্র সংঘের তরফ থেকে একটা নিন্দাসূচক বিবৃতি এসেছে পাকিস্তানের প্রতি। আর এমন অবস্থায় ভারতের কাছে একবার শান্তির বার্তা দিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এই বিবৃতি দিয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য একবার চেষ্টা করুক ভারত।আপনাদের বলে রাখি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কয়েক দিন আগেই জানিয়েছিলেন, আমরা জানি কিভাবে সন্ত্রাস দমন করতে হয় আর কোন যন্ত্রণা সহ্য করতে হবে না ভারতকে, এবার তাদের হিসাব বুঝিয়ে দেওয়া হবে।

 

 

 

 

 

দুদিন আগে এই ভাষাতে পাকিস্তানকে কড়া বার্তা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আর ঠিক তারপরেই অর্থাৎ আজ পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান শান্তি বার্তা জন্য আর্জি জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। তবে আপনাদের বলে রাখি কয়েকদিন আগেই পাক প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন ভারত যদি যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি নেয় তবে পাকিস্তানের যুদ্ধের জন্য দ্বিতীয়বার ভাববে না। পাকিস্তান ও পাল্টা আঘাত করবে তিনি জানিয়েছিলেন।আর এরপরই রাজস্থানের এক জনসভা থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে লক্ষ্য করে হুংকার ছেড়ে ছিলেন।সেদিন তিনি এই জনসভায় জানান ইমরান খান শপথ নেওয়ার পরে আমি তাকে ফোনে অভিনন্দন জানিয়েছিলাম তাকে বলেছিলাম দুই দেশের মধ্যে ঝগড়া অনেক হলো আসুন এবার আমরা একজোট হয়ে দারিদ্র্য ও অশিক্ষার বিরুদ্ধে আন্দোলন করি। আর ইমরান খান আমাকে বলেছিল আমি পাঠানের সন্তান যা বলি তাই করে দেখায়।

 

 

 

 

পুলওয়ামা কান্ডের ঘটনা কে তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন এবার তাকে নাকি প্রমান দিতে হবে তিনি যা বলেন তাই সত্যি করে দেখান। তবে এবার ইমরান খান নিজের সুর পাল্টে অন্য সুরে কথা বলতে শুরু করেছেন তিনি একজন বিখ্যাত প্রয়াত সংগীতশিল্পীর বিখ্যাত গানের প্রথম লাইন উদ্ধৃত করেন “গিভ পিস এ চান্স”। তবে এর আগে পুলওয়ামার জঙ্গি হামলার পরও এই ভারতকে হুঁশিয়ারি জুড়ে ছিল সেই পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তবে এখানেই শেষ নয় কাশ্মীর সমস্যা নিয়ে ভারতকে অযাচিত পরামর্শ দিয়েছিলেন তিনি। আর একই সঙ্গে কাশ্মীরে পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার ও পাকিস্তানের করেছে তার উপযুক্ত প্রমাণ এর দাবি করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে তিনি। জবাবে ভারতে বিদেশমন্ত্রক জানিয়েছিল জঙ্গি সংগঠন গুলির বিরুদ্ধে পদক্ষেপ না করে শুধুমাত্র প্রমাণ চাওয়া টা পাকিস্তানের একটা বাহানা হয়ে গেছে যা তারা বহুকাল ধরেই করে আসছে।

 

 

কারণ হিসাবে বলা যেতে পারে জইশ-ই-মহম্মদ এবং তাদের মাথা মাসুদ আজহার পাকিস্তান এ রয়েছে এবং তাদের সুরক্ষার দায়িত্ব দেখাশোনা করছে পাক সেনাবাহিনী। আপনাদের জানিয়ে রাখি গত রবিবার প্রাক্তন পাক রাষ্ট্রপতি পারভেজ মুশারফ নিজের দেশকে সতর্ক করে বলেছিলেন ভারতের সাথে পাকিস্তানের যুদ্ধ লাগলে এতে ক্ষতি পাকিস্তানের ই হবে এমনকি পরমাণু হামলার ফলে পাকিস্তান ধ্বংস পর্যন্ত হয়ে যেতে পারে। পাকিস্তানকে ধ্বংস করার ক্ষমতা রাখে ভারত। তবে কি তার সুরেই এবার পাক প্রধানমন্ত্রী নিজেই শান্তির বার্তা দিলেন ভারতকে। এখন প্রশ্ন একটাই কোথায় গেল তার সেই হুংকার যা তিনি কয়েকদিন আগে সংবাদমাধ্যমের কাছে প্রকাশ করেছিলেন।

Related Articles

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Close