পাকিস্তানের এয়ারফোর্সের চিনি ডিফেন্স সিস্টেম ভুল করে নিজেদের JF -17 জেট বিমান উড়িয়ে দিলো..

নিউ দিল্লি:- ভারত, রুশ এর সঙ্গে S-৪০০ ডিফেন্স সিস্টেম এর ডিল করেছে এবং সেটি অত্যন্ত মূল্যবান। সে জায়গায় পাকিস্তান চীনের কাছ থেকে খুব কম মূল্যে এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম কিনেছে। পাকিস্তান থেকে একটি আশ্চর্যকর খবর সামনে আসছে, এই খবরটি সামনে আশায় প্রায় সবাই পাকিস্তানকে নিয়ে অনেক মজা করছে ,সেই সঙ্গে চীনের তৈরি করা হাতিয়ার গুলির সম্মন্ধে ও সকলে মজা উড়াছে। আসলে, বালাকোটে এয়ার স্ট্রাইকের পর ভীত হওয়া পাকিস্তান নিজের বায়ুসেনা কে সুরক্ষিত করার জন্য চীনের কাছ থেকে পাওয়া এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম কে ব্যাবহারের কাজে লাগিয়েছে।

পাকিস্তান নিজের শহরগুলিতে এবং যে সকল স্থানে সেনারা উপস্থিত হয়েছে সে সকল স্থান গুলিকে, ভারতীয় বায়ুসেনার (IMF) হামলা গুলি থেকে বাঁচানোর জন্য চীন দ্বারা নির্মিত মধ্যম-রেঞ্জের বায়ু রক্ষা প্রণালী কে কিনে নিয়েছে। আরো একটি আশ্চর্যকর খবর সামনে এসেছে সেটি হল, পাকিস্তানের মুলতান এলাকায় চীন দ্বারা পাওয়া পাকিস্তান ডিফেন্স মিসাইল সিস্টেমটি পাকিস্তানের লড়াকু বিমান মিসাইল এর ওপর নিশানা দেগে দিয়েছে। যেটিতে পাকিস্তান এয়ারফোর্সের JF -১৭ থান্ডার জেট মুলতান অঞ্চলটিতে ক্রাস হয়ে গেল। এই হামলা টির জন্য পাক এয়ার ফোর্স এর পাইলট উইং কমান্ডার মহমুদ মারা গেলেন। যদিও প্রথমে এই খবরটি এসেছিল যে, পাকিস্তানের জেট টির উপর ভারতীয় এয়ারফোর্স হামলা করেছিল, যেটির পর পাক এয়ারফোর্স এবং পাক সেনার মধ্যে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। তৎক্ষণাৎ এটির ওপর নিরীক্ষণ করার পর যেটি সামনে এলো এতে পাক সৈন্যদের হোস উড়ে গেলো। সূত্র অনুসারে জানা যাচ্ছে যে, চীনের তরফ থেকে পাকিস্তান কে যে এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম পাঠানো হয়েছিল, সে ভুলবশত পাকিস্তানের যুদ্ধ বিমান টিকে ভারতীয় বিমান ভেবে তার ওপর মিশাইল ছেড়েছিল। যেটির দ্বারা পাকিস্তানের JF – ১৭ থান্ডার জেট ক্রাশ হয়ে গেল।

পাকিস্তান সৈন্যদের তরফ থেকে এ বিষয়ে কোন নিরীক্ষণ করা হয়নি। যদিও পাকিস্তান সৈন্যরা এই বিষয়ে কোন নিরীক্ষণ করবে কিনা তাতে সন্ধেহ আছে। যদিও পাকিস্তান থেকেই এই খবরটি পাওয়া যাচ্ছে যে সেখানকার একটি যুদ্ধবিমান ক্রাশ হয়েছে। আপনাদের জানিয়ে দিই, পাকিস্তানের রক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলিতে চিনা বায়ু রক্ষা প্রণালীর এই তেনাতটি গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বালাকোটে ভারতীয় বায়ুসেনার এয়ার স্ট্রাইকের ওপর করা হয়েছিল। পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি আরিফ আরবি শনিবার ভারতের সম্বন্ধে আলোচনা করলেন। এবং সেখানে তিনি এয়ার স্ট্রাইক এর জন্য ভারতের চরম নিন্দা প্রকাশ করলেন। রিপোর্ট অনুসারে পাকিস্তান তার বায়ুসেনার রক্ষা প্রণালীটিকে ভারতীয় সেনার নিকট রেখেছে, এটিতে ৫ এলবাই-80 (এইচকিউ ১৬) বায়ুসেনাটির মধ্যে মিসাইল ইউনিটের ও ব্যবস্থা করা হয়েছে। এটি ছাড়াও আই বি ,আই এস – ১৫০ সর্বিলান্স রাডার সিস্টেম এর ও ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এই সিস্টেমটি কম উচ্চতা বিশিষ্ট লক্ষ্যের উপর প্রযোজ্য। রিপোর্ট অনুসারে পাকিস্তানে সেনা এ বিষয়ে বলেছে, এগুলির ওপর নিয়ন্ত্রণ রাখা হবে এবং আশেপাশের সম্ভবত আমলা গুলিকে আটকানোর জন্য কথিত রূপে চীন দ্বারা নির্মিত সি এইচ -৪, সি এইচ-৫ ড্রোনটির ওপর প্রতিস্থাপিত করা হয়েছে।


প্রায় সর্বদায় চীনের প্রস্তুত করা জিনিস গুলির মধ্যে খারাপ কোয়ালিটি পাওয়া যায় এই কারণগুলোর জন্যই প্রায় প্রত্যেকটি দেশেই চীনের বদনাম করে থাকে। এই কারণটির জন্য অত্যন্ত গরীব দেশ ছাড়া কেউই চীনের তৈরি করা জিনিস কেনার আগে বহুবার ভাবে।আমেরিকা , রুশ, ফ্রান্স ইত্যাদি দেশগুলি যে সকল হাতিয়ার নির্মাণ করে থাকে সে হাতিয়ার গুলোর সঙ্গে কখনই চীনের হাতিয়ারের তুলনা করা সম্ভব নয়।