কেউ এক কোটি, কেউ বা দেড় কোটি করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় মন খুলে সাহায্য সেলিব্রিটিদের…

মারণ ভাইরাসের COVID-19 এর মোকাবিলা করতে সারা দেশজুড়ে চলছে 21 দিনের লকডাউন (Lockdown)। যত দিন যাচ্ছে তত মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে পাশাপাশি আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়ছে আরো দ্রুত। করোনা থাবায় দেশের অর্থনীতি তালমাটাল অবস্থা, মানুষ এখন গৃহবন্দী রয়েছে এই রকম পরিস্থিতিতে শুধুমাত্র ভারতে নয় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে লকডাউন।

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ এবং পাকিস্তানের ক্রিকেটাররা ইতিমধ্যেই অনুদান তুলে দিয়েছেন নিজের নিজের দেশে। অন্যদিকে ভারতীয় ক্রিকেটার ও ভারতীয় সেলিব্রিটিরা নাকি এই বিষয় নিয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে নেট দুনিয়াতে আক্ষেপ উঠে আসছিল।তবে নেট দুনিয়ার মানুষের সেই আক্ষেপ আর থাকবে না কারণ এবার করোনা মোকাবেলায় এগিয়ে আসছেন সেলিব্রিটিরা ও পাশাপাশি ক্রিকেটাররাও। এবার করোনা মোকাবেলায় এগিয়ে এলেন জনপ্রিয় অভিনেতা মহেশ বাবু , যিনি অন্ধপ্রদেশ এবং তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলে 1 কোটি টাকার অনুদান দিয়েছেন করোনা মোকাবিলা তে।
অন্যদিকে করানো আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসার সহায়তায় অন্ধপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ত্রাণ তহবিলে 70 লক্ষ টাকা দান করলেন দক্ষিণের জনপ্রিয় অভিনেতা রাম চরণ।

আর এই মুহূর্তে করোনার থাবা সবচেয়ে বেশি ছড়িয়ে পড়েছে তেলেঙ্গানা, মহারাষ্ট্রে তাই তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে 50 লক্ষ টাকা এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ত্রাণ তহবিলে 1 কোটি টাকার অনুদান দিলেন দক্ষিণী অভিনেতা পবন কল্যাণ।

অন্যদিকে অভিনেতা কমল হাসান করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য নিজের বাড়িকে অস্থায়ী হাসপাতালে পরিণত করার প্রস্তাব দিয়েছেন সরকারের কাছে। আর একবার সরকারের অনুমোদন পেলেই তার বাড়িতে গড়ে তোলা হবে অস্থায়ী হাসপাতাল।

করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য পিছিয়ে রইলেন না কপিল শর্মাও,  তিনি এবার করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে 50 লক্ষ টাকা দান করলেন।আর এরই পাশাপাশি এরকম এক কঠিন পরিস্থিতিতে সবাই যাতে শ্রমিকদের সাহায্যে এগিয়ে আছে তারও আবেদন করলেন তিনি। অন্যদিকে ভারতীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে এগিয়ে এলেন শিখর ধাওয়ান, যিনি প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে অর্থিক সাহায্যের জন্য দেশবাসীর কাছে আবেদন জানালেন এর পাশাপাশি জানালেন সকলকে এই মুহূর্ত বাড়ির মধ্যে থাকার। নিজের ও পরিবারের খেয়াল রাখার। তিনি জানালেন আমি আমার কাজ করছি আপনারাও আর্থিক সাহায্যে এগিয়ে আসুন ন্যাশনাল রিলিফ ফান্ডে, আসুন সকলে আমরা কিছু আর্থিক সাহায্য করে দেশকে এরকম এক সংকটের হাত থেকে রক্ষা করার চেষ্টা করি।