আরো একবার প্রধানমন্ত্রীর ডাকা বৈঠকে যাচ্ছেন না , রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়..

আরো একবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ডাকা বৈঠকে যাচ্ছেন না, রাজ্যের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একথা তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশীকে চিঠি লিখে ইতিমধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন। রাজ্যসভা ও লোকসভায় যে সমস্ত দলের সাংসদ রয়েছে তাদের সব দলের সভাপতি দের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চেয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যার দরুন তিনি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

আগামীকাল বুধবার তাই সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক দলের সভাপতি বৈঠকের আয়োজন করেছেন। নরেন্দ্র মোদির পাওয়া এই বৈঠকের নিমন্ত্রণ পত্র পেয়েও সোমবার দিন সন্ধ্যা পর্যন্ত এই বিষয়ে কোন প্রতিক্রিয়া দেননি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। তবে তিনি জানিয়েছিলেন এ নিয়ে তিনি চিঠি লিখবেন।কেন্দ্রীয় সরকারের সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ যশি কে চিঠি লিখে সেই চিঠিতে জানিয়েছি এই বৈঠকে উপস্থিত থাকতে পারবেন না তিনি।

তবে আপনাদের বলে রাখি এর আগেও প্রধানমন্ত্রীর ডাকা নীতি আয়োগের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী এই চিঠিতে জানিয়েছেন, এক দেশ এক ভোট এই নিয়ে এত কম সময়ে আলোচনা করা যায় না। আর এই নিয়ে সাংবিধানিক বিশেষজ্ঞ নির্বাচনী বিশেষজ্ঞ ও সর্ব দলের সদস্যদের সঙ্গে পরামর্শ করা উচিত। এদিন তিনি কেন্দ্রের কাছে শ্বেতপত্র প্রকাশের দাবি জানিয়ে বলেন, কেন্দ্রকে এই বিষয় নিয়ে সব দলের কাছে মতামত চাওয়া হোক। তখন তিনি এ বিষয়ে গঠনমূলক পরামর্শ দেবেন।

কেন্দ্রীয় সরকারের সূত্র অনুসারে জানতে পেরেছে এই বৈঠকে মোদিজী এই দিন কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু নিয়ে আলোচনা করতে চাইছেন। যাদের মধ্যে অন্যতম হলো এক দেশ,এক ভোট। যবে থেকে মোদিজী প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসেছেন তখন থেকে তিনি চাইছেন একসঙ্গে সমস্ত রাজ্যের বিধানসভা ও লোকসভা নির্বাচন করাতে। এর দরুন যেমন সময় ও খরচ বাঁচে তেমন উন্নয়নের কাজে কম বাধাপ্রাপ্ত হয়। এই যুক্তিতেই একসঙ্গে ভোট করাতে আগ্রহী রয়েছেন মোদী।

আর এই বিষয় নিয়ে তিনি বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে আলোচনায় বসতে চান এবং তাদের মতামত জানতে চান।শুধু তাই নয় একই সঙ্গে তিনি তাদের পরামর্শ নিয়ে এটাও জানতে চান এই বিষয়ে কি কি ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে।এছাড়া গান্ধীজির জন্মের দেড়শো বছর উদযাপন ও স্বাধীনতার 75 বছর পালন নিয়ে তিনি আলোচনা করতে চান।

Related Articles

Back to top button