PUBG ব্যান! এবার আমরা কী করবো? নরেন্দ্র মোদিকে প্রশ্ন তৃণমূল সংসদ নুসরতের…

সীমান্ত নিয়ে ভারত ও চীনের মধ্যে যে উত্তেজনা চলছিল সেটি গত কয়েকদিন ধরে ক্রমশ বেড়েছিল যার ফলে আবারো গত বুধবার দিন কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে PUBG সহ আরও 118 টি চাইনিজ অ্যাপ নিষিদ্ধ করা হয় দেশে। এই বিষয়ে ইলেক্ট্রনিক্স এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের তরফে যে বিবৃতি বেরিয়ে এসেছিল সেখানে জানানো হয়েছিল এই যে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনগুলি রয়েছে সেগুলি মোবাইল ব্যবহারকারীদের ডেটা অপ্রত্যাশিত ভাবে অনাবৃত পদ্ধতিতে ভারতের বাইরে সার্ভার গুলিতে প্রেরন করছে।

তাছাড়া এই অ্যাপ্লিকেশনগুলির অপব্যবহার সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রতিবেদন সহ বিভিন্ন সূত্র থেকে অনেক অভিযোগও এসেছে, যার দরুন এগুলিকে বর্তমানে ভারত থেকে ব্যান করা হল। তবে এবার এই বিষয়ে টলিউড অভিনেত্রী তথা তৃণমূলের সাংসদ নুসরাত জাহানকে প্রতিক্রিয়া দিতে দেখা গিয়েছে। যেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ট্যাগ করে অভিনেত্রী লিখেন, GDP তো বেকাবু। তাছাড়া এখন না PUBG তে রিভাইভ হবে না ইকোনমিতে। এবার আমরা কী করবো?

বলে রাখি এর আগেও যখন ভারতে টিকটক ব্যান করা হয়েছিল তখন এই তৃণমূল সাংসদকে প্রতিক্রিয়া দিতে দেখতে পাওয়া গিয়েছিল যেখানে তিনি জানিয়েছিলেন টিকটক আমার জন্য অন্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম গুলির মতো আমার প্রশ্ন হল আচমকাই এই সিদ্ধান্ত কেন নেওয়া হল কেন্দ্রের তরফ থেকে? আর এই অ্যাপ শুধু বন্ধ করে কী হবে? যদিও গত কয়েকদিন ধরে এই অভিনেত্রী তথা তৃণমূল সাংসদকে একাধিক বিষয়ে চর্চায় আসতে দেখা যাচ্ছে, যেখানে কিছুদিন আগেই তিনি বাংলায় বিজেপি তরফে একুশের ভোটের জন্য পদপ্রার্থী হিসেবে তাকে দাড় করানো হবে এই নিয়ে কথা কটাক্ষ করতে দেখা যায়, যেখানে তিনি তার টুইটার হ্যান্ডেল এ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দূরবীনে চোখ রাখা একটি ছবি শেয়ার করেন এবং লিখেন পশ্চিমবঙ্গের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী খুঁজতে গিয়ে এখন এমন অবস্থা বিজেপির।

এরপর হ্যাশট্যাগ দিয়ে তিনি লিখেন, ভয় পেয়েছে বাংলা বিজেপি। গত রবিবার দিন পশ্চিমবাংলার মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী বিষয়ে মুখ খুলতে দেখা যায় বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় কে যেখানে তিনি জানান আমাদের সকলের সহমতি অনুযায়ী পশ্চিমবঙ্গে কাউকে আমরা মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করছি না আপাতত।এই মুহূর্তে আমরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বেই নির্বাচনে লড়বো এবং জয় লাভ করবো, তারপর পরিষদ ও কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের মিলিত সিদ্ধান্তের মাধ্যমে ঠিক করা হবে আগামী মুখ্যমন্ত্রীকে হবেন পশ্চিমবঙ্গে। বলে রাখি বিজেপির তরফ থেকে এরকম মন্তব্য বেরিয়ে আসার পরেই কিন্তু এই জবাব দিয়েছিলেন নুসরত।