চাপ বাড়ল চীনের, ভারতের হাতে আসতে চলেছে অত্যাধুনিক MH-60R মার্কিন হেলিকপ্টার, যা নিমেষের মধ্যেই..

চীন যেভাবে ভারত মহাসাগরে অনুপ্রবেশ করছে ও সাবমেরিন দিয়ে যেভাবে নজরদারি রাখছে ভারতের উপর তা রীতিমতো চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে ভারতের কাছে। তবে এবার সেই চিন্তা দিন শেষ হতে চলেছে কারণ খুব শীঘ্রই ভারতের হাতে আসতে চলেছে এমন এক অস্ত্র যার দরুন ভারত শুধু চীনকেই নয় পাকিস্তানকেও মোক্ষম জবাব দিতে পারবে। তাছাড়া বলে রাখি এই অস্ত্রটি ভারতের হাতে আসার পর ভারত আরও শক্তিশালী উন্নত দেশ হয়ে উঠবে আগামী দিনে।

তবে দেরি না করে আপনাদের বলে দেওয়া যাক সেই শক্তিশালী অস্ত্রটি কী? এটি হলো একটি শক্তিশালী হেলিকপ্টার যে শক্তিশালী হেলিকপ্টার আমাদের দেশের প্রতিরক্ষাকে আরও এক ধাপ উন্নতির দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। হ্যাঁ খুব শীঘ্রই ভারতের হাতে আসতে চলেছে সাবমেরিন ধ্বংসকারী MH-60R। ভারতের নৌসেনা বাহিনীর হাতে আসতে চলেছে এই হেলিকপ্টার যারা জানেন না তাদের উদ্দেশ্যে বলে রাখি এই হেলিকপ্টারটি বিশেষত্ব হল শত্রুপক্ষের সাবমেরিন জলের যতই গভীরেই থাকুক না কেন এটি সেটিকে খুঁজে বের করে ঠিক নিশানা করে দেবে। আর ইতিমধ্যে এই বিষয়ে ভারত মার্কিন সংস্থা লকহিড মার্টিন এর সাথে 90 কোটি 50 লক্ষ মার্কিন ডলারের চুক্তি স্বাক্ষরিত করেছে। আর এই চুক্তি অনুযায়ী ভারত মোট 24 টি MH-60R হেলিকপ্টার কিনতে চলেছে। আর এই হেলিকপ্টার গুলির ডিলেভারি শুরু হয়ে যাবে আগামী বছরের প্রথম দিক থেকেই। তাই এই খবরটি শত্রুপক্ষের কাছে দুঃশ্চিন্তার হলেও প্রত্যেক ভারতবাসীর কাছে গর্বের সংবাদ। একদিকে এই সংবাদটি প্রত্যেক ভারতবাসীর কাছে সুখবর অন্যদিকে এই সংবাদটি শুনে পাকিস্তান সহ চীনের রাতের ঘুম উড়ে যাওয়ার মত কথা। তাছাড়া এই কপ্টার এর মাধ্যমে খুব সহজেই চীন ও পাকিস্তানকে নৌযুদ্ধে হারানো সম্ভব হবে।প্রসঙ্গত বলে রাখি 2009 সালে এই হেলিকপ্টার গুলি কেনার জন্য মার্কিন সরকারের সাথে ভারত সরকারের চুক্তির কথা ঘোষণা করা হয়েছিল। যদিও সেই চুক্তি এতদিনে স্বাক্ষরিত হয়েছে।