চীনকে আবারো বড় ঝাটকা! এবার বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম PPE কিটস উৎপাদনকারী দেশ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করল ভারত..

ভারত প্রতিভাশালী একটি দেশ এবং এখানকার জনগণ যদি কোন দৃঢ় সংকল্প নেয় তাহলে যেকোনো  অসাধ্য কাজও সফল করে দিতে পারে একথা এর আগেও মাইক্রোসফট কোম্পানিকে যখন জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল তখন তারাও তাদের উত্তরে একথা  জানিয়েছিল। যখন মাইক্রোসফট কোম্পানি কে জিজ্ঞাসা করা হয় আপনারা কেন বেশি সংখ্যক ভারতীয়দের আপনাদের কোম্পানিতে নিযুক্ত করে থাকেন, তখন তার উত্তরে তারা জানান ভারতের প্রতিভা যদি আমরা ব্যবহার না করি তাহলে যেকোনো দিন তারা আমাদের চেয়েও বড় কোম্পানি তৈরি করে নিতে পারবে তাদের এই দৃঢ় সংকল্পের কারনে।

আর এবার আন্তর্জাতিক ক্ষেত্র থেকে এক বড় খরব সামনে আসছে যা গোটা বিশ্বকে ভারতের দিকে আকর্ষিত করতে বাধ্য করেছে। প্রসঙ্গত বলে রাখি এর আগে গত ফেব্রুয়ারি মাসে ভারতের কাছে PPE কিটস এর সংখ্যা ছিল মাত্র 52 হাজার। যারা জানেনা তাদের সুবিধার্থে বলে রাখি এই PPE কিটস ব্যবহার করেই চিকিৎসকেরা করোনা ভাইরাসের চিকিৎসা করে থাকেন। এই কিটসগুলি ভাইরাসকে দেহের মধ্যে প্রবেশ করার হাত থেকে আটকায়। আর সেই সময় ফেব্রুয়ারি মাসে ভারতের কাছে যে ক’টি কিটস ছিল সেগুলি সব বিদেশ থেকে আমদানি করা। তবে যেভাবে দিনদিন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ গোটা বিশ্বজুড়ে ছড়াতে থাকে তার জেরে ভারত এই PPE কিটস উৎপাদনে জোর দেয় আর এখন অবাক করার বিষয় হলো ভারত গোটা বিশ্বের মধ্যে এই PPE কিটস উৎপাদনে দ্বিতীয় দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। যে PPE কিটস উৎপাদনের জন্য ভারতসহ অন্যান্য দেশগুলি চীনের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছিল তার ভারত এখন নিজেই তৈরি করছে এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশে রপ্তানিও করছে এই কিটস।

আর ভারতের এখন PPE কিটস উৎপাদন ক্ষমতা দেখলে হয়তো অবাক ও হতে পারেন কারন ভারত এখন প্রতিদিন দু লক্ষ PPE কিটস উৎপাদন করতে সক্ষম। গোটা বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ পরার পরেই বাজারে এই PPE কিটসের ব্যাপক চাহিদা বাড়ে, তাই এই ইন্ডাস্ট্রি যে দেশকে অনেকাংশে লাভবান করবে তা নিয়ে কোন দ্বিমত নেই। তাছাড়া চীনের তরফ থেকে যে PPE কিটস রপ্তানি করা হচ্ছিল সেগুলি অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ত্রুটিপূর্ণ  ছিল আর ভারত একবার চীনের কাছ থেকে এই PPE কিটস আনিয়েছিল তারপর DRDO জানিয়েছিল চীন থেকে আসা কিটস ব্যবহারের অযোগ্য, যার পরেই ভারতে এই PPE কিটস উৎপাদনের ওপর ইউনিট’ খোলা হয় যা মাত্র কয়েকদিনের মধ্যে ভারতকে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম PPE কিটস উৎপাদনকারী দেশে পরিণত করেছে।