মোদি সরকারের এই প্রকল্পের দরুন এখন কম সুদে পেয়ে যাবেন লোন, বিস্তারিত জানতে..

দেশজুড়ে মহামারী করোনাকে রুখতে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে যে লকডাউন চলছিল তার সময়সীমা কে আবারো 31 শে মে পর্যন্ত বাড়ানোর কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে ইতিমধ্যে। তবে এবার এই চতুর্থ দফার লকডাউন চলাকালীন সরকারের তরফ থেকে কিছু শর্ত নিয়ে লকডাউনে ব্যবসা করার অনুমতি প্রদান করা হয়েছে যেখানে আপনি যদি নতুন কোন ব্যবসা শুরু করতে চাইছেন তবে শুরু করার জন্য কোন অর্থ নেই তবে আর চিন্তা করবেন না। কারণ মোদি সরকারের তরফ থেকে শিশু মুদ্রা প্রকল্পের দরুন আপনার স্বপ্ন এবার কার্যকর হয়ে যাবে।

কারণ মোদি সরকারের তরফ থেকে যে শিশু মুদ্রা ঋণের ঘোষণা করা হয়েছে সেখানে জানানো হয়েছে এবার এক্ষেত্রে ঋণের সময় সুদের পরিমাণে 2% ছাড়ার কথা জানানো হয়েছে।

শুধু তাই নয় এক্ষেত্রে ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে আরো কয়েকটি সুবিধা রয়েছে সেগুলি হল নিম্নরূপ–

এক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে যে 20 লক্ষ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজের ঘোষণা করা হয়েছে সেখানে রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর মুদ্রা ঋণ প্রকল্পের নতুন প্রকল্প ঘোষণা যেটি অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ জানিয়ে দিয়েছেন। সেখানে তিনি জানিয়েছেন শিশু মুদ্রা ঋণের ক্ষেত্রে 2 শতাংশ ছাড়ের কথা,তাছাড়া এক্ষেত্রে শিশু মুদ্রা ঋণের আওতায় 50 হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ নেওয়া যেতে পারে। তাই সরকারের তরফ থেকে এরকম এক ঘোষণা করার পর যেসকল ব্যবসায়ীরা যারা লকডাউনে ব্যবসা শুরু করতে চাইছেন তাদের ক্ষেত্রে এটি অনেকখানি উপকারী হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। যারা জানেন না তাদের উদ্দেশ্যে বলে রাখি বর্তমানে শিশু মুদ্রা ঋণের ক্ষেত্রে সুদ হিসাবে ব্যাঙ্কগুলি 10 থেকে 12 শতাংশ হারে আদায় করে থাকে। তবে এক্ষেত্রে সরকার 12 মাসের জন্য দেবে ছাড়, যার ফলে দেশের প্রায় তিন কোটি মানুষ এর ফলে উপকৃত হতে চলেছে। যার ফলে এই তিন কোটি ঋণগ্রহীতা সুদের 2% ছাড় এর ফলে 1500 কোটি টাকা সাশ্রয় করবে।

শুধু তাই নয় এ ক্ষেত্রে রয়েছে তিন রকম লোন নেওয়া সুবিধা, যেখানে প্রধানমন্ত্রীর এই যোজনার রয়েছে মুদ্রা ঋণ, কিশোর মুদ্রা ঋণ, ও তরুণ মুদ্রা ঋণ। এক্ষেত্রে যে শিশু মুদ্রা ঋণটি রয়েছে সেটি ছোট ব্যবসায়ীদের জন্য, যেখানে এর দরুন 50 হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ নেওয়া যেতে পারে। দ্বিতীয়টি হল কিশোর মুদ্রা ঋণ এর দরুন 50 হাজার থেকে শুরু করে 5 লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ নেওয়া যেতে পারে। আর সবশেষে রয়েছে তরুণ মুদ্রা ঋণ এর দরুন 5 লক্ষ টাকা থেকে দশ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ পাওয়া যাবে।



তবে এখন প্রশ্ন কীভাবে এরজন্য আবেদন করতে পারবেন, চলুন তাহলে সেই বিষয়টি সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক–

এক্ষেত্রে আপনাকে এই নিম্নলিখিত ঋণ গুলি নিতে হলে আপনাকে আপনার ব্যবসায়িক প্রকল্পের প্রতিবেদন ও নথিগুলি নিয়ে যেকোন নিকটবর্তী ব্যাংকের শাখায় যেতে হবে। যেখানে ব্যাংকে আপনার ব্যবসা সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে তারপর আপনার ব্যবসার ওপর ভিত্তি করে এক্ষেত্রে আপনার জন্য ঋণ অনুমোদিত করা হবে, যদিও এই প্রকল্পের দরুন কোন গ্যারান্টি ছাড়াই ঋণ মিলবে আর এটি অনেকখানি সহজ হবে। তাই চিন্তার কোন বিষয় নেই।

Related Articles

Back to top button