বিশ্বের চতুর্থ দেশ হিসাবে নাম লেখাল ভারত, শব্দের চেয়েও 6 গুণ গতিতে ছুটল মিসাইল…

দিন দিন ভারত প্রতিরক্ষা শক্তিকে আরো শক্তিশালী করে তুলতে একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করছে আর এবার হাইপারসনিক মিসাইল টেস্ট করে বিশ্বের বড় বড় তাবড় তোবড় শক্তিশালী দেশের মধ্যে নাম লেখালো ভারত।এই মুহূর্তে একদিকে যখন চীনের সঙ্গে সীমান্ত নিয়ে বিবাদ চলছে তারমধ্যেই হাইপারসনিক মিসাইল টেস্ট করে সক্ষম হল ভারত। উল্লেখ্য, এপিজি আব্দুল কালাম টেস্টিং রেঞ্জ থেকে সেই টেস্টিং টি করা হয়েছে এবং এই মিসাইলটি শব্দের থেকেও ছয় গুণ বেশি গতিতে ছুটতে পারবে। আজ সোমবার দিন সকাল 11 টা 3 মিনিটে সেই পরীক্ষা করা হয়, যেখানে অগ্নি মিসাইল বুস্টার দিয়ে এই মিসাইলটিকে টেস্ট করা হয় আর মাত্র পাঁচ মিনিটের মধ্যেই এই পরীক্ষা সম্পন্ন হয়ে যায়।

বলে রাখি ডিআরডিও তৈরি করেছে হাইপারসনিক টেস্ট ডেমোনস্ট্রেটর ভেইকল, সেটিই এই দিন পরীক্ষা করা হয়েছে। সরকারি সূত্রের দাবি, ডিআরডিও আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে স্ক্যামজেট ইঞ্জিনসহ হাইপারসনিক মিসাইলটি তৈরি করতে পারবে। যার ফলে এটি 1 সেকেন্ডের মধ্যে দু কিলোমিটার পর্যন্ত পথ অতিক্রম করতে পারবে। এইদিন ডিআরডিও চীফ সতীশ রেড্ডির পর্যবেক্ষণে এবং নেতৃত্বে মিসাইলটি টেস্ট করা হয় যেখানে সব প্যারামিটার ছিল সঠিক। এই অগ্নি বুস্টার হাইপারসনিক ভেহিকেলস থেকে 30 কিলোমিটার উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল এবং পরবর্তীকালে দুটি আলাদা হয়ে যায় এই পরীক্ষায় সফল হওয়ার পরই প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের তরফ থেকে প্রশংসা করা হয়।

প্রসঙ্গত, এর আগে বলে রাখি হাইপারসনিক মিসাইল এর দিক থেকে কিন্তু অধিকারী হিসেবে দেশের নাম ছিল আমেরিকা,রাশিয়া ও চীনের তবে এবার সেই তালিকায় চতুর্থ দেশ হিসাবে নাম লেখালো ভারত। যদিও বর্তমানে কোভিড পরিস্থিতিতে কিছুদিন আগেই রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের তরফ থেকে ঘোষণা করা হয়েছিল নৌবাহিনীতে অত্যাধুনিক অস্ত্র মোতায়েন করা হচ্ছে। আর বর্তমানে সেইসব অস্ত্র চূড়ান্ত টেস্টিং চলছে, অর্থাৎ আগামী দিনে নৌবাহিনীতে যুক্ত করা হতে চলেছে হাইপারসনিক নিউক্লিয়ার ওয়েপন্স ও আন্ডারওয়াটার ড্রোন।যদিও রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের তরফ থেকে জানানো হয়েছিল এই বাহিনীকে জলের নিচে পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম দেওয়া হবে।

তবে এখন এই বিষয়টি প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের অধীনে চূড়ান্ত পরীক্ষায় পর্যায়ে রয়েছে।শুধু তাই নয় এই দিন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট এ কথাও জানিয়েছিলেন যে এই নতুন প্রজন্মের যে পরমাণু অস্ত্রটি রয়েছে সেটি পৃথিবীর প্রায় যেকোনো স্থানে আঘাত আনতে সক্ষম আরও জানা গিয়েছে যে রাশিয়ার এই যুদ্ধজাহাজে ডুবন্ত পরমাণু অস্ত্র পোজেইডন ও মিসাইল জিকরন মোতায়েন করা হবে। তাছাড়া প্যারাডের এই অনুষ্ঠানে পুতিন জানিয়েছিল নৌবাহিনী ক্ষমতা বাড়ানো হচ্ছে এ বছর তারা আরও 40 টি নতুন জাহাজ পাবে।