বন্ধ শাস্ত্রীর দাদাগিরি! এবার দল নির্বাচনের দায়িত্বে থাকবে না কোচ, বড়ো সিদ্ধান্ত সৌরভের..

ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলী ভারতীয় ক্রিকেট টিমকে এক নতুন জীবন দান করেছিলেন। গত 2000 সালের পরবর্তী ব্যাটিং কেলেঙ্কারিতে জর্জরিত ভারতীয় দলকে প্রায় একার হাত ধরে তেনে তুলে গোটা বিশ্ব ক্রিকেটে আবারো পুনর্জীবিত করে তুলেছিলেন বাংলা দাদা তথা সৌরভ গাঙ্গুলী। আর দাদার পরবর্তী ঘটনা তো সবার সামনেই ইতিহাস হয়ে দাঁড়িয়ে যায়। যতদিন ভারতীয় ক্রিকেট দল থাকবে ততদিন সৌরভ গাঙ্গুলীর নাম সম্মানের সাথে উচ্চারিত করা হবে এ কথা বললেও ভুল হবে না।

আর এবারও ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের দায়িত্ব নেওয়ার পর সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বুঝিয়ে দিলেন সে কথায় যে তিনি চলবেন তার নিজের ফর্মুলায়। এই দশ মাসের যাত্রায় তিনি কারো বেয়াদব বরদাশ্ত করতে রাজী নন।তাই দল নির্বাচন নিয়ে লোধা কমিটিকে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন তিনি নির্বাচন বৈঠকে কমিটির সদস্যরা তো থাকবেন। সাথে সাথে প্রেসিডেন্ট ও সচিব ও থাকবেন কিন্তু কোচ রবি শাস্ত্রী থাকবেন না।তিনি পরিষ্কার জানিয়ে দেন, যে দল দেওয়া হবে কোচের দায়িত্ব শুধুমাত্র সেই দলকে কোচিং করানো।

আর দল নির্বাচনে কোনো ভূমিকা থাকবে না কোচের। সৌরভের এরূপ মন্তব্যের জেরে অনেকে বলতে শুরু করেছেন শাস্ত্রীর খারাপ সময় শুরু হল এবার।যেমন কী এর আগে দেখা গিয়েছিল অনিল কুমলে কে ভারতীয় দলের কোচ করার সময় কোহলির সঙ্গে বিরোধ বাধে। আর তারপরই নির্বাচন করেছিল সৌরভ, শচীন ও লক্ষণের কমিটি। আর তার সময়ের মেয়াদের আগেই দায়িত্ব ছেড়ে দিয়েছিলেন অনিল।আর এবারও ভারতীয় দলের কোচ হিসাবে রবি শাস্ত্রীর নাম পেশ করেন কোহলি, কিন্তু এতে রাজি ছিলেন না দাদা।

তবে কিছুটা শচীনের অনুরোধে ও কোর্ট কমিটির অনুরোধে রবি শাস্ত্রীকে মেনে নেন সৌরভ। কিন্তু এই নিয়ে রবি শাস্ত্রী প্রকাশ্যে বিরূপ মন্তব্য করতে থাকেন। তিনি বলেন সৌরভ একবার সময় না আসার জন্য তাকে ছাড়াই টিমের বাস ছেড়ে দিয়েছিল। তবে দাদা কোন রূপে তাকে ছেড়ে দেওয়ার পাত্র নন তিনিও পাল্টা রবি শাস্ত্রীকে নিয়ে মন্তব্য করেন তিনি বলেন কবে এরকম ঘটনা ঘটেছিল? তবে এখানেই শেষ নয় তিনি আরো বলেন যে সকালে শাস্ত্রীর কিছু মনে থাকে না, তাকে রাতে জিজ্ঞাসা করবেন সেই স্মৃতি এখনো টাটকা। অর্থাৎ একথা থেকে এটা পরিষ্কার হয়ে গেল যে ভারতীয় দলে রবির দাদাগিরি যে বাংলা দাদা একবারেই বরদাস্ত করবেন না তা বলার বিকল্প রাখেনা।