সিদ্ধার্থ মালহোত্রা নয় বরং জামাইবাবু আয়ুষ শর্মাকে “শেরশাহ” ছবির মাধ্যমে বলিউডে অভিষেক করতে চেয়েছিলেন সালমান

অনলাইন প্লাটফর্ম মুক্তি পেয়েছে ‘শেরশাহ’ এবং বিপুল হারে সাড়া ফেলেছে ছবিটি । ছবিতে মূল চরিত্রে ক্যাপ্টেন বিক্রম বাত্রার চরিত্রে অভিনয় করেছেন সিদ্ধার্থ মালহোত্রা । 12 ই আগস্ট মুক্তি পেয়েছে ছবিটি। পরিচালক সাব্বির পরিচালিত এই ছবিটি বক্স অফিসে রেটিং ৮.৮। মিমি ছবির মতো এই ছবিটিও তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। তবে আসল কথা হল সালমান খান চেয়েছিলেন এই ছবির মূল ভূমিকায় থাকুক তার ভগ্নিপতি আয়ুষ শর্মা।

১৯৯৯ সালে কারগিল যুদ্ধে প্রাণ হারিয়েছিলেন ক্যাপ্টেন বিক্রম বাত্রা ,মরণোত্তর পরম বীর চক্র পান তিনি তার জীবন বৃত্তান্ত নিয়েই তৈরি হয়েছে শেরশাহ। ছবির মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন সিদ্ধার্থ মালহোত্রা আর কিয়ারা আদ্ভানি। ওটিটি প্লাটফর্মে মুক্তি পাওয়ার পর এই ছবি তুমুল সাড়া পেয়ে ফেলেছে দর্শকমহলে। সিদ্ধার্থ তার চরিত্রটি অনবদ্য ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন । দাবি করা যায় এটি তার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে ভালো এবং হিট ছবি।

সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে ছবির পরিচালক সাব্বির জানিয়েছেন ” এই ছবিতে সালমান নিজের বোন অর্পিতার স্বামী আয়ুষ শর্মা কে মূল চরিত্রে নেবার জন্য অনুরোধ করেছিলেন।কিন্তু ততদিনে ছবিতে সই করানো হয়ে গিয়েছিল সিদ্ধার্থকে দিয়ে এছাড়াও বাত্রার পরিবার ও নির্মাতা দল নিয়ে একটি বৈঠকে সবকিছু ঠিক হয়ে গিয়েছিল সুতরাং এই পরিস্থিতিতে সবকিছু বন্ধ করে সিদ্ধার্থ কে সরিয়ে আয়ুস কে নেওয়া কোন ভাবেই সম্ভব ছিলনা। এটা নৈতিক দিক দিয়েও ঠিক হতো না । এছাড়া ছবির শুটিং শুরু হয়ে গেছিল তাই একপ্রকার বাধ্য হয়েই সালমান কে না বলতে হয়েছে।

সিদ্ধার্থর প্রথম ছবি ‘স্টুডেন্ট অফ দ্যা ইয়ার’ সুপারহিট হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীকালে সেভাবে কোন ছবিতে অভিনয়ের দ্বারা তিনি দর্শক মনে ছাপ ফেলতে পারেননি। বর্তমানে এই হ্যান্ডসাম হিরো ‘শেরশাহ’ ছবির হাত ধরে সাফল্যের চূড়ায় আর এক ধাপ এগিয়ে গেলেন। বর্তমানে তার হাতে রয়েছে দুটি ছবি ‘থ্যাংক গড’ও ‘মিশন মজনু’। তবে সালমান আয়ুষ শর্মা কে ‘লাভ যাত্রী’ ছবিতে ডেবিউ করিয়েছিলেন।